মেইন ম্যেনু

নয় বছর নয় মাস অপেক্ষায় থেকে মারা যায় প্রভূভক্ত সেই কুকুরটি

সবাই বলে ভালোবাসার পরিসীমা নেই। তবে ভালোবাসার এই ব্যাপ্তিটা শুধু মানুষের নয়, অনেক প্রাণী প্রমাণ করেছে মৃত্যুও ভালোবাসার শেষ সীমারেখা নয়।

হাচিকোর কথা মনে আছে? জাপানের সেই যে কুকুরটা প্রতিদিন তার মালিককে পৌঁছে দিতো ট্রেন স্টেশনে, আর অফিস শেষ করে মালিক ফিরলে একসঙ্গে বাড়ি ফিরত? একদিন ফিরতি ট্রেনে আর ফেরে না মালিক, অফিসেই তার মৃত্যু হয়েছে। কিন্তু তার ফেরার অপেক্ষায় স্টেশনেই দাঁড়িয়ে থাকে হাচিকো। নয় বছর নয় মাস পনের দিন পরে স্টেশনেই মারা যায় প্রভূভক্ত কুকুরটি, এই ভালোবাসাকে সম্মান জানাতে জাপানের শিবুয়া স্টেশনে রয়েছে হাচিকোর মূর্তি, হলিউডে নির্মিত হয়েছে ‘হাচিকো’ নামের চলচ্চিত্র।

এছাড়া আরেকটি ঘটনা আপনাদের সামনে তুলে ধরি।

ডিনডিম : বছর চারেক আগের কথা। ব্রাজিলের রিও ডি জেনিরো সাগরের উপকূল থেকে দক্ষিণ আমেরিকান মাজেলানিক মৃতপ্রায় পেঙ্গুইন উদ্ধার করেন জোয়াও পিরেরা ডিসুজা। খাবার ও চিকিৎসায় পেঙ্গুইনটিকে সুস্থ করে তোলেন তিনি, নাম রাখেন ডিনডিম। বন্ধুত্ব ও ভালোবাসার শুরুটা এভাবেই। বন্ধুর সহায়তায় আবারো সাঁতারকাটা শুরু করে ডিনডিম, ফিরে যায় নিজের বাড়ি। কিন্তু প্রতি বছর প্রায় ৮ হাজার কিলোমিটার পাড়ি দিয়ে বন্ধুর সঙ্গে দেখা করতে আসে ডিনডিম। ‘কোয়ালিটি টাইম’ শেষে বন্ধুকে বিদায় জানান জোয়াও।