মেইন ম্যেনু

পর্যটন শিল্পের বিকাশ বদলে দিতে পারে শ্রীমঙ্গলের অর্থনীতি

সৌরভ আদিত্য, শ্রীমঙ্গল প্রতিনিধি: পর্যটনের অপার সম্ভাবনাময় মৌলভীবাজারের শ্রীমংগল উপজেলা। এ খাতের দিকে নজর দিলে বদলে যেতে পারে শ্রীমংগলের অর্থনীতি। গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখতে পারে দেশের অর্থনীতিতেও।

প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের লীলাভূমি শ্রীমংগলের পরিচিতি এখন বিশ্বব্যাপী। চায়ের রাজধানী খ্যাত শ্রীমংগলে প্রতিদিনই দেশি-বিদেশি পর্যটকের পদভারে থাকে মুখরিত। শ্রীমংগলে হাজার হাজার পর্যটক চা- বাগানের আকর্ষনে ছুটে আসেন।

খাসিয়াপুঞ্জি ও তাদের পানের বরজ, লাউয়াছড়া জাতীয় পার্ক, চা- বাগান, মনিপুরিপাড়া, মনিপুরি তাঁতশিল্প, ডিনস্টন সিমেট্রি, চা জাদুঘর, বিটিআরআই, নির্মাই শিববাড়ি, বার্ণিশ টিলা, গলফ ফিল্ড, পাখি বাড়ি, বণ্যপ্রানী সেবা ফাউন্ডেশন, চা বাগানের লেক, চা-কন্যা ভাস্কর্য, বধ্যভূমি ৭১, টিপড়া পল্লী, গারো পল্লী, টি রিসোর্ট, লালমাটি পাহাড়, বাদুড় বাড়ি, লেবু, আনারস, রাবার বাগান– এ রকম অসংখ্য দর্শনীয় ও পর্যটন স্পট রয়েছে শ্রীমংগলে। সব মিলিয়ে দেশের অনন্য এক স্থান শ্রীমংগল।

কিন্তুু সরকারি-বেসরকারি পর্যাপ্ত উদ্যোগের অভাবে এ শিল্পেরর তেমন বিকাশ ঘটছে না। শ্রীমংগলে এ শিল্পের বিকাশ ঘটানো গেলে এখানকার আর্থ-সামাজিক অবস্থার আমুল পরিবর্তন হতো বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা।

তবে পর্যটকদের কথা মাথায় রেখে বেসরকারি উদ্যােগে এখানে গড়ে উঠেছে শতাধিক হোটেল, রিসোর্ট, বাংলো ও কটেজ। বেসরকারি উদ্যোগে প্রায় ২২৫ কোটি টাকা ব্যয়ে এখানে পাঁচ তারকা মানের হোটেল গ্র্যান্ড সুলতান টি রিসোর্ট এন্ড গলফ গড়ে উঠেছে।

তবে এখানে নেই কোনো পর্যটন মোটেল। নেই পর্যটন কর্পোরেশনের কোন তথ্যকেন্দ্র। তবে পর্যটন মোটেলের কাজ শুরু হলেও অজ্ঞাত কারণে দীর্ঘদিন ধরে এর কাজ থেমে আছে।

দেশের অন্যতম পর্যটন শহর শ্রীমংগল। প্রতিদিন হাজারো দেশি-বিদেশি পর্যটক বেড়াতে আসেন শ্রীমংগল। পর্যটনের তথ্যকেন্দ্র না থাকায় পর্যটকদের বিপাকে পড়েন অনেকেই।

সারাদেশের সাথে উন্নত যোগোযোগ ব্যবস্থা রয়েছে শ্রীমংগলের। রেল ও সড়কপথে উন্নত যোগোযোগের কারনেও প্রতিদিন ভিড় করেন পর্যটকরা শ্রীমংগলে।

কিন্তুু অপর্যাপ্ত নিরাপত্তা ব্যবস্থা ও উদ্যােগের অভাবে শ্রীমংগলে এখনো আশানুরুপ পর্যটকের আগমন ঘটছে না। বিপুল সম্ভাবনা থাকা সত্বেও কেবল সুষ্ঠু পরিকল্পনা, বিভিন্ন খাতের উন্নয়ন, পর্যটন কর্পোরেশনের অবহেলার কারনে পর্যাপ্ত পর্যটক আকৃষ্ট করা যাচ্ছে না।
সংশ্লিস্ট কর্তৃপক্ষের আন্তরিকতা ও উদ্যােগই বদলে দিতে পারে পর্যটনের অপার সম্ভাবনার শ্রীমংগলকে। সেই সাথে বদলে দিতে পারে শ্রীমংগল তথা দেশের অর্থনীতিকেও।