মেইন ম্যেনু

পুলিশের কানের পর্দা ফাটানো ছাত্রলীগ নেতা বহিষ্কার

পুলিশ সদস্যকে মারধর ও চড় মেরে কানের পর্দা ফাটানোর ঘটনায় শরীয়তপুর সদর উপজেলা ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি আক্তার ঢালীকে দল থেকে বহিষ্কার করা হয়েছে।

দলীয় শৃংখলা ভঙ্গের অভিযোগে শরীয়তপুর বুধবার জেলা ছাত্রলীগের আহ্বায়ক মোহসীন মাদবর, যুগ্ন আহ্বায়ক টিপু কোতোয়াল ও রাশেদুজ্জামান স্বাক্ষরিত এক চিঠির মাধ্যমে তাকে বহিষ্কার করা হয়।

এছাড়া এ ঘটনায় পালং মডেল থানায় পুলিশের পক্ষ থেকে ৩ জনকে আসামি করে একটি মামলা হয়েছে।

আহত পুলিশ কর্মকর্তা বর্তমানে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে।

সদর উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান আলমগীর হোসেন হাওলাদারের ভাগ্নে সদর উপজেলা ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি আকতার হোসেন ঢালি ও আওয়ামী লীগ নেতা শেখ খলিলুর রহমান জাগরণ মঙ্গলবার সকালে শরীয়তপুর সদর হাসপাতালের কর্তব্যরত চিকিৎসক দেবাশীষ সাহাকে একটি ভুয়া সার্টিফিকেট দিতে বলেন।

দেবাশীষ সাহা মিথ্যা সার্টিফিকেট দিতে অস্বীকৃতি জানালে তাকে গালিগালাজ করতে থাকেন নেতারা। এতে ডাক্তারের কাছে চিকিৎসা নিতে আসা রোগী পুলিশের নায়েক সেলিমুজ্জামন মাতুব্বর প্রতিবাদ করলে তাকে মারধর ও চর মেরে কানের পর্দা ফাটিয়ে ফেলে আক্তার ঢালী।

এদিকে পুলিশ কর্মকর্তাকে কানের পর্দা ফাটানোর ঘটনায় পালং মডেল থানার এসআই মো. নজরুল ইসলাম বাদী হয়ে একটি মামলা দায়ের করেন। এর আগে চিকিৎসকদের পক্ষ থেকে একটি মামলা করা হয়।

পালং মডেল থানার ওসি মো. খলিলুর রহমান বলেন, থানায় ২টি মামলা হয়েছে। আসামি গ্রেফতারের জন্য অভিযান অব্যাহত আছে।