মেইন ম্যেনু

পুলিশ আতঙ্কে নাসিরনগরে হাওড়ে বসবাস

nasirnagar-special-newsbrahmanbaia-1

ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাতের অজুহাতে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নাসিরনগরে তাণ্ডবের মাস পূর্ণ হতে যাচ্ছে। কিন্তু নতুন আতঙ্কে পড়েছেন নাসিরনগরবাসী। ওই তাণ্ডবের ঘটনায় দায়ের হওয়া ছয়টি মামলায় গ্রেফতার এড়াতে হাওড়ে রাত কাটাচ্ছেন স্থানীয়রা। জানা গেছে, ওই সব মামলায় অজ্ঞাত আসামি করা হয়েছে প্রায় ২৫০০ জনকে।

গ্রেফতার এড়াতে রাতের বেলা হাজার হাজার পুরুষ ঘরবাড়ি ছেড়ে ৩ কিলোমিটার দূরে মাঝ হাওড়ে শীতের মধ্যে তাবু বানিয়ে রাত কাটাচ্ছেন। তারা বলছেন, নাসিরনগরের তাণ্ডবের ঘটনায় তারা জড়িত নয়, তবু প্রসাশনের নির্বিচারে গ্রেফতার এড়াতেই তারা হাওড়ে মানবেতর জীবন-যাপন করছেন। এই অবস্থা চলছে গত ২ সপ্তাহ দরে।

বাসিন্দারা বলছেন, পুলিশ, র‌্যাব ও বিজিবিসহ এত বেশি আইনশৃঙ্খলা বাহিনী দিনে ও রাতে পাহারা দিয়েও কিভাবে হিন্দুদের ঘরে আগুন লাগছে এটি নিয়ে যতেষ্ট সন্দিহান তারা। নিরাপত্তার জন্য নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এরকম হাওড়ে থাকা একাধিক ব্যক্তির অভিযোগ, ‘মুসলমানদের গ্রামছাড়া রাখতেই হিন্দুরা নিজেরাই নিজেদের ঘরে আগুন দিচ্ছে। কারণ আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর এতো কড়া পাহারা থাকা সত্বেও বাইরের কোনো মানুষের পক্ষেই কারও ঘরে আগুন লাগানো সম্ভব না।’

প্রতিবেদকের সরেজমিন অনুসন্ধানে দেখা যায়, শুধু বয়স্ক লোক নয়, গ্রেফতারের ভয়ে বাড়ি ছেড়ে হাওড়ে থাকছেন ১২-১৩ বছরের অনেক কিশোর। তারা সেখানে পলিথিন কাগজ ও মশারি দিয়ে তাবু খাটিয়ে ধান খেতের মধ্যে কনকনে শীতে জবুথবু হয়ে থাকছে। ঠিকভাবে খাওয়া-দাওয়া করতে পারছে না, যেতে পারছে না স্কুল ও কর্মক্ষেত্রে। এতে আর্থিক সঙ্কটে পড়েছে তাদের পরিবার।