মেইন ম্যেনু

প্রতিদিন একটি ডিম খাচ্ছেন তো?

পুষ্টিকর একটি খাবার হল ডিম। অনেকের পছন্দের খাবার এটি আবার অনেকে ডিমের নাম শুনলে নাক মুখ কুঁচকে থাকেন। অথচ আপনি জানেন কি প্রতিদিন একটি ডিম আপনাকে দূরে রাখবে অনেকগুলো রোগ থেকে? সকালের নাস্তায় প্রতিদিন একটি ডিম রাখুন। ডিম ভাজি অথবা অন্য কোন ভাবে রান্না করে খাওয়ার চেয়ে সেদ্ধ ডিম বেশ উপকারি। একটি বড় ডিমে ৭৮ ক্যালরি, ৬.৩ গ্রাম প্রোটিন, ৫.৩ গ্রাম ফ্যাট, ১.৬ গ্রাম স্যাচুরেটেড ফ্যাট এবং ২১২ গ্রাম কোলেস্টেরল রয়েছে। সকালের একটি সিদ্ধ ডিম সারাদিনের কাজের শক্তি পেয়ে যাবেন। আসুন দেখে নেয়া যাক প্রতিদিন সকাল বেলা একটি করে সেদ্ধ ডিম খাওয়ার উপকারিতা গুলো।

১। ভিটামিনের চাহিদা পূরণ

একটি ছোট ডিম সবগুলো ভিটামিনের চাহিদা পূরণ করে। ভিটামিন বি২ খাবারের থেকে এনার্জি শুষে নিতে শরীরকে সাহায্য করে। ভিটামিন বি১২ রক্ত কণিকা তৈরি করে। ভিটামিন এ চোখের জ্যোতি বৃদ্ধি করে এবং ভিটামিন ই ক্যান্সার প্রতিরোধ করে।

২। প্রোটিন

সেদ্ধ ডিমে প্রাকৃতিক ভাবেই প্রচুর পরিমাণে প্রোটিন আছে। শরীরের মাংস পেশি গঠনের জন্য প্রোটিন একটি জরুরী খাদ্য উপাদান। প্রোটিন শরীরের সকল কোষ গঠনে সহায়তা করে এবং চুলের জন্য একটি প্রয়োজনীয় উপাদান। প্রতিদিনের খাবারের ১০ থেকে ৩৫% পর্যন্ত অথবা ৫০ গ্রাম থেকে ১৭৫ গ্রাম প্রোটিন থাকা উচিত। সকাল বেলা নাস্তায় একটি সেদ্ধ ডিম খেলে ৬ গ্রামের বেশি প্রোটিন পাওয়া যায়।

৩। স্তন ক্যান্সার প্রতিরোধ করে

Harvard University ২০০৩ সালে এক গবেষণায় দেখা গেছে যে, ডিমে থাকা উপাদান স্তন ক্যান্সার প্রতিরোধ করে। আরেক গবেষণায় দেখা গেছে যেসকল নারীরা সপ্তাহে কমপক্ষে ৬টি ডিম খেয়ে থাকেন তাদের ৪৪% পর্যন্ত স্তন ক্যান্সার হওয়ার সম্ভাবনা কমে যায়।

৪। হাড় গঠন

ডিমে আছে ভিটামিন ডি যা হাড় ও দাঁত শক্ত করে। ভিটামিন ডি খাবার থেকে ক্যালসিয়াম গ্রহণ করতে সহায়তা করে এবং রক্তের ক্যালসিয়ামের মাত্রা নিয়ন্ত্রণ করে। ফলে শরীরের হাড়ের কাঠামো মজবুত ও শক্ত হয় এবং হাড়ের ক্ষয় রোধ হয়। মানব দেহে প্রতিদিন ৬০০ IU ভিটামিন ডি প্রয়োজন। প্রতিদিন সকালের নাস্তায় একটি সেদ্ধ ডিম খেলে ৪৫ IU ভিটামিন ডি পাওয়া যায় যা হাড়ের স্বাস্থ্য ভালো রাখতে সহায়তা করে।

৫। মস্তিষ্কের উন্নতি সাধন

ডিমে আছে প্রচুর পরিমানে কলিন নামক উপাদান যা নিউরোট্র্রান্সমিটার হিসেবে কাজ করে আমাদের দেহকে সুস্থ রাখে। এটি মস্তিষ্কের উন্নতি সাধন করে থাকে। তাছাড়া ডিমের কুসুম আমাদের মস্তিষ্কের ভিতরে স্নায়ু কোষের রক্ষণাবেক্ষণ করে।

৬। ওজন হ্রাস করতে

ওজন কমাতে ডিম অনেক উপকারি। গবেষণায় দেখা গেছে যে ডিম আমাদের ঘন ঘন ক্ষুধা লাগাকে কমিয়ে দিয়ে অনেকক্ষণ পেট ভরিয়ে রাখে।