মেইন ম্যেনু

প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করতে চান খাদিজা

সিলেটে ছাত্রলীগের বহিষ্কৃত নেতা বদরুল আলমের হামলায় আহত কলেজছাত্রী খাদিজা আক্তার নার্গিসের বাবা মাসুক মিয়া জানিয়েছেন, তাঁর মেয়ে সুস্থ হয়ে বাড়িতে ফেরার আগে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে দেখা করতে চান।

আজ মঙ্গলবার দুপুরে রাজধানীর উপকণ্ঠ সাভারের লালটেক এলাকায় পক্ষাঘাতগ্রস্তদের পুনর্বাসনকেন্দ্রে (সিআরপি) এ তথ্য জানান মাসুক মিয়া।

মাসুক মিয়া বলেন, ‘হঠাৎ করে আমরা মেয়েটা বলল, আব্বু, আমি যদি আল্লাহ আমারে সুস্থ করেন, এখন যে সাভারে যাচ্ছি, যদি সিআরপিতে আল্লাহ আমারে সুস্থ করেন, তাইলে আমি সুস্থ হয়ে বাড়িতে না ফিরে আমি মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করে বাড়ি ফিরব।’

এদিকে দুপুরে সিআরপিতে চিকিৎসাধীন খাদিজাকে দেখতে যান ঢাকা-১৯ আসনের সরকারদলীয় সংসদ সদস্য (এমপি) ডা. এনামুর রহমান। এ সময় তিনি সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলেন।

এনামুর সাংবাদিকদের বলেন, সিলেটে কলেজছাত্রী খাদিজা আক্তার নার্গিসের ওপর হামলা জাতির জন্য দুঃখজনক। এ সময় তিনি খাদিজার ওপর হামলাকারী বদরুল আলমের শাস্তি দাবি করেন। পরে খাদিজার হাতে ১০ হাজার টাকা দেন তিনি।

খাদিজার স্বাস্থ্যের অবস্থার বিষয়ে সিআরপির নিউরোলজি বিভাগের প্রধান ডা. সাঈদ উদ্দিন হেলাল জানিয়েছেন, খাদিজা এখন আগের চেয়ে অনেক ভালো। তিনি থেরাপি নিচ্ছেন। তাঁকে পুরোপুরি সুস্থ করে তুলতে আরো এক মাস সময় লাগবে।

গতকাল সোমবার সকালে চিকিৎসার জন্য রাজধানীর স্কয়ার হাসপাতাল থেকে সাভারের সিআরপিতে ভর্তি করা হয় খাদিজা আক্তার নার্গিসকে।

গত ৩ অক্টোবর এমসি কলেজে পরীক্ষা দিয়ে বের হওয়ার সময় সিলেট সরকারি মহিলা কলেজের স্নাতক দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী খাদিজা আক্তার নার্গিসকে চাপাতি দিয়ে কুপিয়ে গুরুতর আহত করেন শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (শাবিপ্রবি) ছাত্রলীগের সাবেক সহসম্পাদক বদরুল আলম। এ ঘটনায় খাদিজার চাচা আবদুল কুদ্দুস বাদী হয়ে বদরুলকে একমাত্র আসামি করে মামলা দায়ের করেন।

এরপর গত ৫ অক্টোবর বদরুল আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেন। পরে তাঁকে কারাগারে প্রেরণ করেন আদালত। ঘটনার পর শাবিপ্রবি থেকে স্থায়ীভাবে বহিষ্কার করা হয় বদরুলকে।