মেইন ম্যেনু

প্রেমিকের জীবন বাঁচাতে নিজের কিডনি দান

আসছে ভ্যালেন্টাইনস ডে তে ভলোবাসার মানুষকে এক জীবনদায়ী উপহার দিতে যাচ্ছেন তার প্রেমিকা। আর তাহলো তিনি নিজের কিডনিটি প্রেমিককে দান করবেন বলে ঠিক করেছেন।

গত বছর ম্যাঞ্চেস্টারে এক গলফের ময়দানে আলাপ দুজনের। গফসটাউনে স্টোনব্রিজ কান্টিক্লাবে দেখা হয় দুই গল্ফার জ্যাক সিমার্ড ও মিশেল লা ব্রাঞ্চের। প্রথমে ভালো লাগা ও তারপর ভালোবাসা। একে অপরকে প্রাণের থেকেও বেশি ভালোবেসে ফেলেন দুজন।

সামনেই ভ্যালেন্টাইনস ডে। তার আগেই মিশেল জানতে পারেন, তার ৪৯ বছর বয়সি প্রেমিক জ্যাক দ্বিতীয়বার তার কিডনি ট্রান্সপ্লান্টের জন্য একজন দাতা খুঁজছেন। যদিও ১৯ বছর বয়সে জ্যাকের দিদির কিডনি প্রতিস্থাপন করা হয়েছিল তার শরীরে।

প্রেমিক জ্যাকের শারীরিক অবস্থার কথা জেনে আর চুপ করে বসে থাকতে পারেননি মিশেল। জ্যাককে কিছু না জানিয়ে ডাক্তারের সঙ্গে দেখা করেন তিনি। তার কিডনি জ্যাকের শরীরে প্রতিস্থাপন করা যাবে কিনা তা জানতে পরীক্ষা করাতে চান।

মিশেলের এই সৎ ইচ্ছেয় বাধ সাধেনি বিধাতাও। কারণ পরীক্ষা শেষে চিকিত্‍‌সক মিশেলকে জানিয়ে দেন, তিনি তার প্রেমিককে কিডনি দান করতে পারবেন।

এরপর আর দেরি করেননি মিশেল। সিদ্ধান্ত নিয়ে ফেলেন, তিনিই জ্যাককে কিডনি দান করবেন। এরপর তিনি কথাটা জানান জ্যাককে। বলেন, জ্যাকই তার ভবিষ্যত্‍‌। তাই তার সুস্থ জীবনের জন্য এটাই মিশেলের উপহার। আর এই অসাধারণ উপহার তিনি আসছে ভ্যালেন্টাইনস ডে তে জ্যাক কে দিবেন।