মেইন ম্যেনু

বাজওয়াকে কেন সেনাপ্রধান করলেন শরিফ?

qamar-javed-bajwa-pakistan-army_32214_1480320710

সবার ধারণাকে অনেকটা ভুল প্রমাণিত করে পাকিস্তানের সেনাপ্রধান হয়েছেন জেনারেল কামার জাভেদ বাজওয়া। কেন অনেকটা আড়ালে থাকা এই জেনারেলকে বাছাই করলেন প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরিফ এখন সেটা নিয়ে চলছে চুলচেরা বিশ্লেষণ।

বাজওয়ার নিয়োগ বিভিন্ন দিক থেকে বিশ্লেষণ করছে পাকিস্তানের সংবাদমাধ্যমগুলো। এনিয়ে একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে এনডিটিভি।

পাকিস্তানের শীর্ষস্থানীয় পত্রিকা ‘দ্য নিউজ’ জানায়, গণতন্ত্রপন্থী হিসেবে আস্থাভাজন হওয়া এবং বাজওয়ার তেমন নাম-ডাক না থাকাটাই প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরিফকে এমন সিদ্ধান্ত নিতে প্রভাবিত করেছে। শেষ পর্যন্ত চার জ্যেষ্ঠ জেনারেলকে ডিঙ্গিয়ে তাকে সেনাপ্রধান করা হয়।

পত্রিকাটির মতে, নওয়াজ শরিফ সেনাপ্রধান হিসেবে এমন একজনকে নিয়োগ দিতে চেয়েছেন,যিনি সামরিক বিশেষজ্ঞ হবেন, একই সঙ্গে গণতন্ত্রকে সমর্থন দেবেন।

উল্লেখ্য, ব্রিটেন থেকে পাকিস্তান স্বাধীন হওয়ার প্রায় ৭০ বছরের মধ্যে অর্ধেকেরও বেশি সময় দেশটির ক্ষমতায় ছিল সামরিক শাসকরা।

প্রতিবেদনে আরও বলা হয়, ‘সেনাপ্রধান হওয়ার দৌঁড়ে থাকা চার জেনারেলের সবাই একই দিন মিলিটারি একাডেমি থেকে পাস করেন। কিন্তু বাজওয়া অভিজ্ঞতার দিক থেকে নিঃসন্দেহে অন্যদের চেয়ে আলাদা।’

‘বাওজয়ার ধীশক্তি, স্বচ্ছ ভাবমূর্তি, অভিজ্ঞতা এবং সবচেয়ে বড় কোর’র নেতৃত্ব দেয়ার বিষয়টি তাকে সেনাপ্রধান হতে সাহায্য করেছে’ প্রতিবেদনে যোগ করা হয়।

আরেকটি শীর্ষস্থানী পত্রিকা ‘দ্য ডন’ বলেছে,’বেসামরিক সরকারের সঙ্গে সম্পর্কের ক্ষেত্রে বাজওয়া অনেকটা মধ্যপন্থী। আর এই বিষয়টিই তাকে সেনাপ্রধান নিয়োগে প্রধানমন্ত্রীর সিদ্ধান্তকে প্রভাবিত করেছে।’

বাজওয়ার সাবেক এক কমান্ডিং অফিসার পত্রিকাটিকে বলেছেন, বেসামরিক ইস্যুতে সেনাবাহিনীর নাক না গলানোর পক্ষে অন্যতম একজন নতুন সেনাপ্রধান।

প্রতিবেদনে আরও বলা হয়, বিদায়ী সেনাপ্রধান রাহিল শরিফের সময় সামারিক ও বেসামারিক প্রশাসনের সম্পর্কের ভারসাম্য সেনাবাহিনীর পক্ষেই বেশি ঝুঁকে ছিল।