মেইন ম্যেনু

বিশেষজ্ঞদের মতে যেসব অঙ্গে হাত দিতে নেই

%e0%a6%a0%e0%a7%8b%e0%a6%81%e0%a6%9f-528x350

কর্ণকুহর : অনেকে কানের মধ্যে আঙুল ঢুকিয়ে খোঁচাখুঁচি করে। মার্কিন গবেষক অধ্যাপক জন কে নিপার্কো জানান, আঙুল কানে ঢোকালে কর্ণকুহরের ত্বক ছিঁড়ে যেতে পারে। শুধু আঙুলই নয়, সেখানে কোনো কিছুই প্রবেশ করানো উচিত নয়।

মুখমণ্ডল : আমরা অহরহই মুখে হাত দিই। বিশেষজ্ঞদের মতে, যে কারণেই হোক, মুখে হাত দিতে হলে দুই হাত ভালোভাবে পরিষ্কার করে নেওয়া উচিত। কারণ হাতে প্রচুর ময়লা ও জীবাণু থাকতে পারে। তা থেকে মুখের ত্বক সংক্রমিত হওয়া অস্বাভাবিক নয়।

নিতম্ব : যুক্তরাষ্ট্রের হারবারভিউ মেডিক্যাল সেন্টারের আফটার কেয়ার ক্লিনিকের পরিচালক জারেড ডাব্লিউ ক্লেইন জানান, নিতম্বে হাত দেওয়া মারাত্মক ক্ষতির কারণ হতে পারে। মলদ্বারে প্রচুর ব্যাকটেরিয়া থাকে। মলত্যাগ বা কোনো কারণে এই স্থান স্পর্শ করলে অবশ্যই ভালোমতো হাত ধুতে হবে।

চোখ : ময়লা পরিষ্কার ছাড়া চোখে হাত দেওয়ার দরকার নেই। হাতের জীবাণু আপনার চোখের বিপদ ডেকে আনতে পারে। কচলানো তো আরো বেশি ক্ষতিকর।

নাসারন্ধ্র : নাক, কান ও গলার সমস্যায় জর্জরিত রোগীদের নিয়ে ২০০৬ সালে একটি গবেষণা হয়। তাতে দেখা গেছে, যারা নাকের ফুটায় আঙুল দেয় তাদের নাকে ‘স্ট্যাফাইলোকক্কাস অরিয়াস’ ব্যাকটেরিয়া সংক্রমণের ঝুঁকি অন্যদের চেয়ে ৫১ শতাংশ বেশি।

নখের নিচের ত্বক : অনেক ধরনের ব্যাকটেরিয়ার বাস হওয়ায় নখের নিচের ত্বকের পরিবেশ হয় নোংরা। তাই হাত দিয়ে সেখানকার পরিবেশ আরো অস্বাস্থ্যকর করার দরকার নেই। বরং নখ পরিষ্কার রাখা উচিত। সে ক্ষেত্রে নেইল ব্রাশ ব্যবহার করা যায় ।

ঠোঁট : গবেষণায় দেখা গেছে, কোনো বিষয়ে একঘেয়েমি লাগলে মানুষ ঘণ্টায় প্রায় ২৪ বার ঠোঁটে আঙুল বা হাত দেয়। এই বদভ্যাসের কারণে মুখে প্রচুর জীবাণু ছড়িয়ে পড়ে।