মেইন ম্যেনু

বেরোবিতে বিব্রতকর অবস্থায় যোগদান করতে আসা নবাগত শিক্ষকরা

begum

বেরোবি প্রতিনিধি: রংপুর বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ে (বেরোবি)সম্প্রতি ১৩ জন নতুন শিক্ষক নিয়োগ কার্যক্রম সম্পন্ন হয়েছে। নিয়োগ প্রাপ্ত শিক্ষকবৃন্দ গতকাল সোমবার থেকে বিশ্ববিদ্যালয়ে যোগদান করা শুরু করেছেন। সোমবার বিকাল পর্যন্ত ৫ জন শিক্ষক যোগদান করেছেন বলে আজ মঙ্গলবার সকালে এই প্রতিবেদককে জানান বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার মুহাম্মদ ইব্রাহীম কবীর। এই খবরটি সবার কাছে সুসংবাদই বটে।

সেশনজট নিরসনসহ বিশ্ববিদ্যালয়ের সার্বিক উন্নয়নে নবাগত শিক্ষকরা তাদের সর্বোপরি জ্ঞানের ভান্ডার দিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়কে ঢেলে সাজাবে বলে সংশ্লিষ্টদের প্রত্যাশা। তবে সবেমাত্র আসা এসব শিক্ষক বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকদের অন্যতম সংগঠন নীল দলের জবরদস্তিমূলকভাবে সদস্য করা নিয়ে বিব্রতকর অবস্থায় পড়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। যোগদান করা মাত্রই এসব শিক্ষককে নীল দলের সদস্যভুক্তির জন্য হাতে ফরম তুলে দিয়ে পূরণের জন্য বলা হচ্ছে।

অভিযোগে জানা যায়, বিশ্ববিদ্যালয়ে যোগদান করতে আসা নবাগত শিক্ষকদেরকে যোগদানের পরপরই বঙ্গবন্ধুর আদর্শে উজ্জীবিত শিক্ষকদের সংগঠন নীল দল থেকে সংগঠনের ফরম পূরণে বাধ্য করছেন। কর্মজীবনে এসে প্রথম কর্মদিবসে কোন কিছু বোঝার আগেই জোর করে সংগঠনের সদস্যভুক্তিতে এক ধরণের বিব্রতকর অবস্থায় পড়তে হচ্ছে বলে শিক্ষকরা অভিযোগ করেন।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক গতকাল যোগদান করতে আসা নবাগত এক শিক্ষক বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ে যোগদান করার পর কোন কিছু বোঝার আগেই কোনো সংগঠনে সদস্যভুক্তকরণে নিজেকে বিব্রতকর অবস্থায় পড়তে হচ্ছে। বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিতরে শিক্ষকদের মধ্যেও অনেক রাজনীতি হয়। জানি না এমন কর্মকান্ডে কোন রাজনীতির ফায়দায় পড়তে চলছি।

এদিকে একটি সূত্র জানান, ডিসেম্বরের শেষে বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির নির্বাচন। এই নির্বাচনে বিশ্ববিদ্যালয়ের আওয়ামী লীগ পন্থি দুই সংগঠন প্রগতিশীল শিক্ষক সমাজ এবং নীল দল পৃথকভাবে পূর্ণাঙ্গ প্যানেলে প্রার্থী ঘোষণা করে। সে হিসেবে নিজ সংগঠনের সদস্য সংখ্যা তথা ভোট সংখ্যা বাড়াতেই নীল দলের সদস্যরা এমন কর্মকান্ড পরিচালনা করছেন।

বিশ্ববিদ্যালয়ের সচেতন কয়েকজন শিক্ষক জানান, সবেমাত্র আসা এসব নতুন শিক্ষকদেরকে সাংগঠনিক দ্বন্দ্বের যাতাকলে ফেলা উচিত নয়। তাদেরকে সর্বোচ্চ মেধাশক্তিকে কাজে লাগিয়ে জবরদস্তি কোন সিদ্ধান্ত নয়, নিজেদের ইচ্ছার প্রতিফলন ঘটানোর সুযোগ দিতে হবে।

অভিযোগের ব্যাপারে জানতে চাইলে সংগঠনে নতুন সদস্যভুক্তিকরণের বিষয়ে নীল দলের সভাপতি গোলাম রব্বানী মঙ্গলবার সকালে জানান, সংগঠনে যেকোন সময় বিশ্ববিদ্যালয়ের যেকোনো শিক্ষক সদস্য হতে পারে। এটি নিয়ে কোন ধরাবাধা নিয়ম নেই। তবে জোরপূর্বকভাবে নবাগত শিক্ষকদের হাতে ফরম পূরণ করানোর বিষয়ে প্রথমে কোনো মন্তব্য করতে পারবেন না বলে জানালেও এই অভিযোগ প্রগতিশীল শিক্ষক সমাজ ছাড়া কেউ করবে না বলে জানান। তিনি জানান, উদ্দেশ্য প্রণোদিত হয়ে প্রগতিশীল শিক্ষক সমাজ নীল দলের সাংগঠনিক কার্যক্রমকে বাঁধাগ্রস্ত করার পায়তারা করছে।