মেইন ম্যেনু

ভারতে বিয়ে উপলক্ষে ব্যাঙ্ক থেকে তোলা যাবে আড়াই লক্ষ টাকা! কিন্তু কবে থেকে?

image-6

নোটবদলের প্রক্রিয়ায় এই মুহূর্তে নাগরিকদের উপর ব্যাঙ্ক বা পোস্ট অফিস থেকে টাকা তোলার ঊর্ধ্বসীমা ধার্য রয়েছে। প্রথমে ঘোষণা করা হয়েছিল যে একজন গ্রাহক ব্যাঙ্ক থেকে দিনে ১০,০০০ টাকা ও সপ্তাহে মোট ২০,০০০ টাকা তুলতে পারবেন। যাঁদের নভেম্বরে বিয়ের তারিখ নির্দিষ্ট করা রয়েছে, প্রাথমিক এই ঘোষণার পরেই দুশ্চিন্তায় পড়ে যান তাঁরা। কারণ বিয়ে বা রিসেপশনের ঠিক আগেই ফুল পেমেন্ট করতে হয় ক্যাটারার-ডেকরেটরদের।

টাকা তোলার এই লিমিট ধার্য করার জন্য, অনেককেই বিয়ে পিছিয়ে দিতে হয়েছে আর যাঁরা সেটা করতে পারেননি, তাঁদের প্রচুর হেনস্থা হয়েছে। সারা দেশ থেকে এই সংক্রান্ত খবর আসার পরে কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রক থেকে ঘোষণা করা হয় যে, শুধুমাত্র বিয়ে উপলক্ষে আড়াই লক্ষ টাকা পর্যন্ত ব্যাঙ্ক থেকে তোলা যাবে। এই ঘোষণাটি শুনে অনেকেই ব্যাঙ্কে গিয়ে টাকা তোলার চেষ্টা করেন কিন্তু ব্যাঙ্ক স্পষ্ট জানিয়ে দেয় যে সরকারি সার্কুলার এসে না পৌঁছনো পর্যন্ত এত টাকা তোলা যাবে না।

গতকালই দক্ষিণ দিনাজপুরের গ্রামীণ ব্যাঙ্কের একটি শাখায় বিয়ের কার্ড নিয়ে গিয়ে ৫০,০০০ টাকা তুলতে চেয়ে বিফল হন এক ব্যক্তি। তাই অর্থমন্ত্রক সংবাদমাধ্যমের সামনে ঘোষণা করলেও বাস্তবে কিন্তু তার কোনও প্রভাব পড়ছে না। সব ব্যাঙ্কেরই বক্তব্য যে সার্কুলার না এলে তাঁরা এই ব্যাপারে কিছু করতে পারবে না। জানা গিয়েছে, আগামী সপ্তাহেই রিজার্ভ ব্যাঙ্ক অফ ইন্ডিয়ার পক্ষ থেকে অফিসিয়াল সার্কুলার পাঠানো হবে। তার পর থেকেই ব্যাঙ্ক থেকে আড়াই লক্ষ টাকা তোলা যাবে।

কিন্তু ঠিক কবে থেকে এই সুবিধা পাওয়া যাবে? সংবাদসংস্থা পিটিআই-এর খবর, পঞ্জাব ন্যাশনাল ব্যাঙ্কের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে যে আগামী সোমবার বা মঙ্গলবার থেকেই সম্ভবত এই পরিষেবা পাওয়া যাবে। যাঁর বিয়ে তিনি অথবা তাঁর বাবা বা মায়ের অ্যাকাউন্ট থেকে এই পরিমাণ টাকা তোলা যাবে। কিন্তু সব ব্যাঙ্কেই যে এই সুবিধাটি মঙ্গলবার থেকেই পাওয়া যাবে তা হয়তো নয়। যেমন এই বিষয়ে করপোরেশন ব্যাঙ্কের একজন উচ্চপদস্থ অফিসার জানিয়েছেন যে সার্কুলার এলে, তার পরেই সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে যে ঠিক কবে থেকে গ্রাহকদের এই সুবিধা দেওয়া যাবে। তবে সার্কুলার পেলেও সব ব্যাঙ্কের সব শাখাতেই যে এই পরিষেবা পাওয়া যাবে, সেই নিয়ে যথেষ্ট সন্দেহ রয়েছে। বেশিরভাগ শাখাতেই পর্যাপ্ত পরিমাণ ক্যাশ টাকা নেই এই মুহূর্তে। তাই কোনও একজনকে আড়াই লক্ষ টাকা তুলতে দিলে ব্যাঙ্কের অন্যান্য গ্রাহকদের পরিষেবা দিতে সমস্যা হতে পারে।