মেইন ম্যেনু

মুক্তিযোদ্ধা সংসদকে পরাজিত করল শেখ রাসেল

174856shikeh_rasel_kalerkantho_pic

দারুণ পারফরমেন্সে মুক্তিযোদ্ধা ক্রীড়া চক্রকে পরাজিত করে অপরাজিত থেকেই চট্টগ্রাম পর্ব শেষ করল শেখ রাসেল। চট্টগ্রামের এম এ আজিক স্টেডিয়ামে বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগ ফুটবলের আজকের খেলায় অসাধারণ ফুটবল খেলল শেখ রাসেলের ফুটবলাররা। দুর্দান্ত আক্রমণের পাশাপাশি দুর্ভেদ্য রক্ষণের কারণে মুক্তিযোদ্ধাকে কোনো সুযোগই দিল না তারা। ফলে ২-০ ব্যবধানের জয় তুলে নিল মিশু-জামাল-রুম্মানরা।

ম্যাচের শুরু থেকেই আক্রমনাত্বক ফুটবল খেলে শেখ রাসেল। ম্যাচের ৪ মিনিটে গোলের সুযোগ তৈরি হলেও ইকাঙ্গার শট গোলপোস্টের বার ঘেষে বেড়িয়ে যায়। ১৩ মিনিটে বল গোল জালে জড়িয়ে দিলেও শেখ রাসেল গোল বঞ্চিত হয়। রেফারী আনিসুর রহমান সাগরের ‘অফসাইড’ এর সিদ্ধান্তটি বিতর্কিত সে বিষয়ে কোনো সন্দেহ নেই।

তবে ৩৫তম মিনিটে সেই ইকাঙ্গাই এগিয়ে নেন শেখ রাসেলকে। অধিনায়ক আতিকুর রহমান মিশুর বাম পায়ের কর্ণার থেকে ইকাঙ্গা দর্শনীয় হেড বল পাঠিয়ে দেন মুক্তিযোদ্ধার জালে। ৪৪ তম মিনিটে বামপ্রান্ত থেকে ইকাঙ্গা ডি বক্সে ঢুকে রনির উদ্দেশ্যে মাইনাস করলেও তা পা ছোঁয়াতে ব্যর্থ হয়। ফলে আরেকটি গোলের সুযোগ হাতছাড়া হয়ে যায়। দুই মিনিট পর আবারও মিশুর নেয়া ফ্রি কিক কেক গোল বারের শট নেয় সাবেস্টিয়ান বাম পায়ে শট নিলেও তা সাইড বারে লেগে চলে যায় বাইরে।

৬৩ মিনিটে ডি বক্সের বাইরে শেখ রাসেলের অধিনায়ক মিশুকে ধাক্কা দিয়ে ফেলে দেয় মুক্তিযোদ্ধার খেলোয়াড়। কিন্তু বিষয়টা দেখেও এড়িয়ে যায় রেফারি।৭২ মিনিটে ফের বাজে রেফারিংয়ের শিকার শেখ রাসেল। মুক্তিযোদ্ধার গোলরক্ষক মামুন খান আঘাত করে ইকাঙ্গাকে মাটিতে ফেলে দেয়। কিন্তু লাল কার্ড পাওয়ার মত অপরাধ করলেও রেফারি ফাউল পর্যন্ত দেননি।

৮০ মিনিটে জয়সূচক গোলটি করেন ইকাঙ্গা। বামপ্রান্ত থেকে মিশুর লবে অসাধারণ হেড করে বল জালে জড়ান তিনি। খেলা শেষে শেখ রাসেল বিজয়ীর বেশে মাঠ ছাড়লেও বাজে রেফারিংয়ের শিকার হওয়ার আক্ষেপ শোনা গেল অনেকের মুখেই।

শেষ পর্যন্ত ওই ব্যবধানে শেষ হয় ম্যাচ। বিজয়ী বেশে শেখ রাসেল সাজ ঘরে ফিরলেও ম্যাচ শেষে কোচ শফিকুল ইসলাম মানিকের কণ্ঠে শোনা গেছে অফ সাইডের অজুহাতে গোল বাতিল করে দেয়ার আক্ষেপ। তিনি বলেন, ‘ওঠা নিশ্চিত গোল ছিল। কিন্তু কেন অফ সাইড দিল তা বুঝছি না। জিতে গেছি বলে ওই গোল নিয়ে আমরা কথা বলছি না। কিন্তু আর গোল না হলে তা আমাদের জন্য বড় ক্ষতির কারণ হয়ে দাঁড়াত।’

উল্লেখ্য, এবারের চট্টগ্রাম পর্বে বিজিএমসির বিরুদ্ধে সর্বশেষ ম্যাচে শেষ মুহুর্তে গোল হজম করে ড্র করলেও বাকি দুই ম্যাচে জয় পেয়েছে শেখ রাসেল।