মেইন ম্যেনু

মোটরসাইকেলে ৬৪ জেলা ভ্রমণে এই দম্পতি

travel-big-20161127140110

‘টুরিজম ফর অল’ এই শ্লোগানে যুব সমাজকে বাংলাদেশের পর্যটন শিল্পের প্রতি উৎসাহী করে তোলার লক্ষ্যে মোটরসাইকেলে করে সারাদেশের ৬৪ জেলা ঘুরছেন এই ব্যবসায়ী দম্পতি। এরই অংশ হিসেবে শনিবার (২৬ নভেম্বর) নীলফামারীতে আসেন ঢাকার বাসিন্দা ব্যবসায়ী দম্পতি আলমগীর আহমেদ চৌধুরী ও চৌধুরাণী দিপালী আহমেদ।

এ সময় জেলা প্রশাসক মো. জাকির হোসেনের সঙ্গে সাক্ষাৎ শেষে বেলা ১২টার দিকে স্থানীয় মিডিয়া হাউসে পৌঁছে সাংবাদিকদের সঙ্গে ভ্রমণের অভিজ্ঞতা বর্ণনা করেন। এ সময় দম্পতি বলেন, ‘বাংলাদেশের অনেক পর্যটক রয়েছেন যারা প্রতিবছরই বিশ্বের বিভিন্ন দেশে ঘুরতে যান। এতে করে যেমন আমাদের দেশের টাকা বাইরের দেশে চলে যাচ্ছে অর্থনীতিও পড়ছে ক্ষতির মুখে। দেশের যুব সমাজকে ভ্রমণে আগ্রহী করার লক্ষ্যেই দেশব্যাপী এই মোটর যাত্রা। অনেক তরুণ আছেন যারা মোটরসাইকেলে করে দল বেঁধে ঘুরে বেড়ান। তারা যেন তাদের সহধর্মিণীকে নিয়ে ঘুরতে উৎসাহী হন সেই লক্ষ্যে এই যাত্রা। দম্পতি আরও বলেন, ‘শীতের মৌসুমেই বাংলাদেশের মানুষ বেশি ঘুরতে বের হন। শীতের মৌসুমকে সামনে রেখেই এই উদ্যোগ নিয়েছেন। তারাই প্রথম দম্পতি হিসেবে মোটরসাইকেলে করে দেশ ভ্রমণে বের হলেন।

মোটরসাইকেলে দেশ ভ্রমণ প্রসঙ্গে আলমগীর আহমেদ বলেন, ‘আমরা দু’জনে দাম্পত্য জীবনের ১৪ বছর পার করেছি। সংসার জীবনের শুরু থেকেই আমরা দু’জনে ঘুরোঘুরি নিয়ে ব্যস্ত। দু’জনে মিলে দেশের প্রায় ২০ থেকে ২৫টি জেলা ঘুরে ফেলেছি। আমাদের দু’জনেরই ছোট ব্যবসা প্রতিষ্ঠান রয়েছে। তাই আমরা ঘুরতে পারি। ভ্রমণের প্রতি দুর্বলতা থেকেই চাকরি খোঁজা হয়নি। দু’জনে একে অন্যের সাথে মিলে সুখেই আছি। আমাদের মধ্যে কোন প্রকার মনোমালিন্য নেই।

চৌধুরাণী দিপালী আহমেদ বলেন, ‘আমার মা একজন ভ্রমণপিপাসু মানুষ। তিনি আমাকে নিয়ে বিয়ের আগে বিভিন্ন জায়গায় ঘুরতে যেতেন। আমাকে তিনি বলতেন বিয়ের পর যদি তোমার বর তোমাকে বেশি ঘুরতে না দেয় তাহলে আর ঘুরতে পারবে না। কিন্তু বাস্তবে আমার ক্ষেত্রে ঘটেছে তার উল্টো। আমি এমন একজনকে জীবন সঙ্গী হিসেবে পেয়েছি। যিনি নিজেই ঘুরতে অনেক ভালবাসেন। তাই পুরো বাংলাদেশ ঘুরার সুযোগ পাচ্ছি। নিজেকে ভাগ্যবতী মনে হচ্ছে।’

ছাত্র-ছাত্রীদের সাথে মতবিনিময় করেন এবং জেলার একটি দর্শনীয় পর্যটন স্থানে ঘুরে ছুটে চলেন অন্য জেলার উদ্দেশ্যে। ওই দম্পতিকে সার্বিকভাবে সহযোগিতা করছে বাংলাদেশ পর্যটন সংস্থা। আগামী ২০১৭ সালের জানুয়ারির ১৯ তারিখে দেশের সব জেলা ঘুরা শেষ হবে এই দম্পতির। মোটরসাইকেলে সারাদেশে ঘুরে ভ্রমণপিপাসু মানুষকে দেশের ভেতরে যে পর্যটন কেন্দ্র রয়েছে তা সম্পর্কে বিস্তারিত তুলে ধরাই মূল উদ্দেশ্য।