মেইন ম্যেনু

‘যাঁদের টিভিতে দেখেছি, তাঁদের সঙ্গে খেলতে পেরেই ভালো লাগছে’

292a9f07354779a10c59b8ef695d2d02-miraj-2

চেহারায় এখনো শিশুর সারল্য। মায়াভরা মুখে হাসি লেগেই আছে। কিন্তু এই সহজ-সরল অলরাউন্ডার মেহেদী হাসান মিরাজই যেন মাঠে হয়ে ওঠেন দুর্বোধ্য, কঠিন। ইংল্যান্ডের সঙ্গে শেষ টেস্টে ১০৮ রানের বিশাল জয়ের পর সরল এক মিরাজকেই আজ পাওয়া গেল সংবাদ সম্মেলনে। এমন ঐতিহাসিক জয়ের পর বললেন, ‘যাঁদের খেলা টিভিতে দেখেছি, তাঁদের সঙ্গে খেলতে পেরেই বেশি ভালো লাগছে। আমি ভাবতেই পারছি না যে জাতীয় দলে খেলছি বা বড় ভাইদের সঙ্গে খেলছি। মুশফিক ভাই, তামিম ভাই, সাকিব ভাই, রিয়াদ ভাই…আসলে আমি ভীষণ রোমাঞ্চিত।’

মাত্রই দুটি টেস্ট খেলছেন। অথচ এরই মধ্যে যেন ড্রেসিংরুমটাও অনেক চেনা লেগেছে মিরাজের, ‘মুশফিক ভাই, সাকিব ভাই, তামিম ভাইয়েরা যেভাবে সমর্থন করেছেন, তাতে আমার মনেই হয়নি যে প্রথম জাতীয় দলে খেলছি। মনে হয়েছে, জাতীয় দলে খেলছি অনেক দিন থেকেই। এক মুহূর্তের জন্য মনে হয়নি আমি নতুন।’

গত ফেব্রুয়ারিতে অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপে হয়েছিলেন সিরিজ সেরা। ইংল্যান্ডের সঙ্গে টেস্টে সুযোগ পেয়েই নিজেকে চিনিয়েছেন। দুই টেস্ট মিলিয়ে ১৯ উইকেট নিয়ে হয়েছেন সিরিজ সেরা। এমন একটা সুযোগেরই যেন অপেক্ষায় ছিলেন খুলনার তরুণ, ‘আমার লক্ষ্যই ছিল এমন যে যখনই সুযোগ পাব, যেন ভালো কিছু করতে পারি। সুযোগগুলো কাজে লাগাতে পারলে আরও বড় সুযোগ আসবে। যখনই আমাকে ডাকা হোক, যেন ভালো খেলতে পারি।’

টেস্ট ক্রিকেটে সবে শুরু মিরাজের পথচলা। ভবিষ্যতে আরও ভালো করার প্রত্যাশার কথা জানালেন সংবাদ সম্মেলনে, ‘এই উইকেটে যেভাবে বল করেছি, উইকেট একটু সাহায্য করেছে। যেভাবে উইকেট পেয়েছি, বাইরে গিয়ে হয়তো এভাবে উইকেট পাব না। আমাকে আরও অনেক ভালোভাবে অনুশীলন করতে হবে। যেকোনো কন্ডিশনে যেন মানিয়ে নিতে পারি।’

এটাই তো চাওয়া। যেন নিজেকে শাণিয়ে নেন আরও। বিশেষ করে ব্যাটিংয়ের মিরাজকে তো এখনো চেনা বাকি আন্তর্জাতিক ক্রিকেটের।