মেইন ম্যেনু

যেভাবে এক মাসে আয়ের ৫০ শতাংশ সঞ্চয় করেন এই নারী

একটি নির্দিষ্ট জীবনধারায় অভ্যস্ত হয়ে গেলে মানুষের পক্ষে সঞ্চয় করা কঠিন। কারণ টাকা যা আসে তার সবই খরচ হয়ে যায়। কিন্তু এ ধারা ভাংতে সক্ষম হয়েছেন এক নারী। এমি মার্টিন নামে সে নারী সম্প্রতি জানিয়েছেন তার সেই অসম্ভবকে সম্ভব করার কাহিনী। এক প্রতিবেদনে বিষয়টি জানিয়েছে বিজনেস ইনসাইডার।

তিনি জানান, নিউ ইয়র্ক শহরের মতো ব্যয়বহুল শহরে তিনি বসবাস করেন। আর এ কারণে অর্থ সাশ্রয় করা খুবই কঠিন। তার পরেও অর্থ সাশ্রয় করার জন্য তিনি উদ্যোগ নেন। এরপর এক মাস চেষ্টায় প্রায় অর্ধেক অর্থ সঞ্চয় করতে সক্ষম হন তিনি। তিনি বলেন, স্থায়ী খরচগুলো কমানোর জন্য প্রথমেই উদ্যোগ নিতে হয়। কারণ প্রতি মাসে প্রচুর অর্থ নানা খাতে ব্যয় হয়ে যায়। এছাড়া রয়েছে নানা ধরনের অস্থায়ী খরচ, যা ঝোঁকের বশে ব্যয় করা হয়।

প্রথম সপ্তাহ
আমি নিউ ইয়র্ক শহরে থাকি। এখানে ইচ্ছা করলেই বহু অর্থ খরচ করা যায়। আর এ অবস্থায় আমি ঠিক করেছি কোনো অর্থ খরচ করব না। এজন্য আমি বাইরে খেতে যাওয়া, আইসক্রিম খাওয়া ও এ ধরনের খরচগুলো বাদ দেই। এছাড়া আরেকটি বিষয় হলো পার্টি। আমি এ সপ্তাহে এ ধরনের খরচও এড়িয়ে চলব বলে সিদ্ধান্ত নেই।
শুক্রবার দিনটিকে আমি চ্যালেঞ্জ হিসেবে নেই। এ দিনে আমি বাড়তি ব্যয় না করার সিদ্ধান্তে অটল থাকি। এজন্য আমি বাড়িতেই মাংস রান্না করে খাই। বাইরের খাবার কেনা বাদ দেই।

আমি দিনটি আরাম করে কাটাই। বাইরে শপিং করতে যাওয়ার বদলে বাড়িতেই রান্না করি। কয়েকজন বন্ধুকে বাসায় দাওয়াত করি এবং রান্না করা খাবার খাই একত্রে।

ব্যয়বহুল রেস্টুরেন্টে যাওয়ার বদলে আমি বাড়িতে রান্না করা খাবার নিয়ে পার্কে যাই। সেখানে বন্ধুদের সঙ্গে নিয়ে তা উপভোগ করি। এ থেকে আমি যে টাকা বাঁচাতে পারলাম তার হিসাব করি।

শপিং সেন্টারে যাওয়ার আগে আমি বাসায় থাকা খাবার ও অন্যান্য উপাদানের খোঁজখবর শুরু করি। এতে বাড়িতে এমন সব জিনিসের সন্ধান পাই, যেগুলো ব্যবহার করা যেতে পারে। এরপর সতর্কতার সঙ্গে তালিকা তৈরি করি এবং সে অনুযায়ী শুধু প্রয়োজনীয় জিনিসগুলো কেনাকাটা করি। এভাবে এক সপ্তাহ পার হয়ে যায়। সপ্তাহ শেষে আমি দেখতে পাই বেশ কিছু অর্থ বাঁচানো গেছে।

দ্বিতীয় সপ্তাহ
এ সপ্তাহে আমার বোন বেড়াতে আসে। আমরা একত্রে বেশ মজার সময় পার করার পরিকল্পনা করি। কিন্তু অর্থ যেন বেশি ব্যয় না হয় সেজন্যও মনোযোগী থাকি। এজন্য আমরা একত্রে ঘুরতে বের হই। তবে খাবার হিসেবে আমরা সাশ্রয়ী ও মজাদার খাবার বেছে নেই। এছাড়া ঘোরাঘুরিতেও সাশ্রয়ী উপায়গুলো কাজে লাগাই।

তৃতীয় সপ্তাহ
নিউ ইয়র্ক শহরে বিনামূল্যে করার মতো কাজ খুবই কম রয়েছে। তার পরেও আমি নানা উপায়ের সন্ধান করতে থাকি। এতে বেশ কিছু সাশ্রয়ী উপায়ের সন্ধান পাই। সপ্তাহান্তটি কাটানোর জন্য আমি আনলিমিটেড মেট্রো কার্ড কিনি। এটি দিয়ে বিভিন্ন ঐতিহাসিক স্থানে ঘুরে বেরাই। আর আমার বাজারও করতে হয়। তবে কেনাকাটার আগে বাড়িতে কী কী জিনিস রয়েছে, তা দেখে নেই। ফলে ব্যয় করার আগে সতর্কভাবে বেশ কিছু জিনিস আবার ব্যবহার করার সুযোগ পেয়ে যাই। এতে নতুন জিনিস কেনার খরচ কম হয়।

চতুর্থ সপ্তাহ
চতুর্থ সপ্তাহটি আমি আমার বন্ধুর আসন্ন বিয়ে উদযাপন করতে নাশভ্যাইলে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নেই। সেখানে চার দিন থাকতে হবে। আর খাবার, পানীয় ও ট্যাক্সির পেছনেও প্রচুর ব্যয় রয়েছে। তার পরেও আমি সেখানে যাই এবং সতর্কতার সঙ্গে ব্যয় করি। এতে আমার খরচ কিছুটা বাড়লেও তা নিয়ন্ত্রণের বাইরে যায়নি। আর সময়টিও অসাধারণ কেটেছে।-কালের কণ্ঠ