মেইন ম্যেনু

যে ফলের খোসায় ৭ দিনে ঝকঝকে সাদা হবে দাঁত!

55555_31007_1479361447

আমরা সবাই জানি কলা একটি পুষ্টিকর ফল। শিশু থেকে শুরু করে প্রায় সব বয়সের লোকই এ ফলটি খেতে পছন্দ করে। কলায় রয়েছে প্রোটিন এবং প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন। এতে প্রয়োজনীয় প্রাকৃতিক সুগার গ্লুকোজ, ফ্রুকটোজ ও সুক্রোজ রয়েছে।

কলা ফলটি আমরা অনেক আগ্রহের সঙ্গে খাই ও এর খোসা ফেলে দেই। কিন্তু জানেন কি? কলার খোসা সবচেয়ে শক্তিশালী নিউট্রিয়েন্ট বহন করে। দেহের এমন কিছু সমস্যা রয়েছে, যা রোধে ওষুধের মতো কাজ করে কলার খোসা।

কলার খোসায় পর্যাপ্ত পরিমাণে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট, মিনারেলস এবং ভিটামিন থাকে। যা বহু রোগ নিরাময় করে ও নতুন করে কোষ গড়ে তুলতে সহায়তা করে। শুধু তাই নয়, কলার খোসায় মাত্র সাত দিনে আপনার হলদে দাঁতও হয়ে যেতে পারে ঝকঝকে সাদা।

অবিশ্বাস্য হলেও এ কথা এখন প্রমাণিত। তাহলে দেরি কেন? আসুন জেনে নিই কলার খোসায় আর কী কী সমস্যার সমাধান রয়েছে?

* দাঁতের হলদে ভাব আমাদের অনেকেরই সমস্যা ও বিব্রতকর পরিস্থিতিতে পড়ার কারণ। এই সমস্যার সমাধানে দু’মিনিট ধরে কলার খোসার ভেতরের দিকটা দাঁতে ঘষতে থাকুন । এরপর পাঁচ মিনিট অপেক্ষা করুন। এরপর আপনার পছন্দ মতো টুথপেস্ট দিয়ে দাঁত মেজে ফেললেই মাত্র সাত দিনেই দাঁত হয়ে উঠবে ঝকঝকে সাদা।

* শরীরে অতিরিক্ত আঁচিল থাকলে কলার খোসার ভিতরের অংশ আঁচিলের ওপর রাখুন। নিয়মিত ব্যবহারে আঁচিল শুকিয়ে পড়ে যাবে। তবে সাত দিনের মধ্যে এ পদ্ধতিতে আঁচিল পড়ে না যায়, তাহলে ডাক্তারের শরণাপন্ন হবেন অবশ্যই।

* ব্রণকে দ্রুত দূর করতে সাহায্য করে কলার খোসা। কলার খোসার ভিতরের অংশটি দিয়ে ব্রণের উপর ঘষতে থাকুন। কিছুক্ষণ পর দেখবেন ব্রণ মিলিয়ে গেছে।

* মশা বা পোকামাকড়ের কামড়ের ফলে ত্বকে এক ধরনে জ্বালা বা চুলকানি হয়। এই জ্বালা বা চুলকানি থেকে তাৎক্ষণিক রক্ষা পেতে চাইলে কলার খোসার ভিতরের দিক ওই স্থানে ঘষুন। দেখবেন জ্বলুনি বা চুলকানি কমে গেছে।

* কলার খোসা মাথা ব্যথা কমাতে সক্ষম।কপালে কলার খোসা বিছিয়ে শুয়ে পড়ুন, কিছুক্ষণের মধ্যে স্বস্তি পাবেন।

* এটা পানি পরিশ্রুত করে। গবেষণায় দেখা গেছে, কলার খোসা পানি থেকে সীসা ও তামা শোষণ করে নিয়ে পানি পরিশ্রুত করে।

এছাড়া হাতের কাছে শু-পলিস না থাকলে শু পলিসের পরিবর্তে ব্যবহার করতে পারেন কলার খোসা। প্রথমে জুতায় ময়লা লেগে থাকলে তা পরিষ্কার করে নিন। এবার পাকা কলার খোসার ভেতরের অংশ দিয়ে জুতার উপরে ঘষুণ অন্তত পাঁচ মিনিট। এবার একটি পাতলা পরিষ্কার কাপড় দিয়ে জুতা জোড়া ভালো করে মুছে নিন। এখন নিজেই দেখুন আপনার জুতা চকচকে হয়ে উঠেছে।