মেইন ম্যেনু

যৌনক্ষমতা বৃদ্ধি ও ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে কালোজিরা

কালোজিরা রোগ নিরাময়ের এক গুরুত্বপূর্ণ উপাদান। এতে ফসফেট, আয়রন, ফসফরাস প্রভৃতি উপাদান রয়েছে, যা বিভিন্ন রোগের হাত থেকে আমাদের বাঁচায়। এটি যৌনক্ষমতা বৃদ্ধিসহ দেহের প্রাণশক্তি বাড়ায় এবং ক্লান্তি দূর করে। তাই প্রাচীনকাল থেকে মানবদেহের নানা রোগের প্রতিষেধক এবং প্রতিরোধক হিসেবে ব্যবহার হয়ে আসছে কালোজিরা। চলুন পাঠক আমরা জেনে নিই কালো জিরার নানা গুণের কথা-

রোগ প্রতিরোধে কালোজিরা

কালোজিরা রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করে। নিয়মিত কালোজিরা খেলে শরীরের প্রতিটি অঙ্গপ্রত্যঙ্গ সতেজ থাকে। এটি যেকোনো জীবাণুর বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তুলতে দেহকে প্রস্তুত করে তোলে এবং সার্বিকভাবে স্বাস্থ্যের উন্নতি করে।

ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে

কালোজিরা ডায়াবেটিসে আক্রান্ত রোগীদের রক্তের গ্লুকোজ কমিয়ে দেয়। ফলে ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে থাকে।

রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে

কালোজিরা নিম্ন রক্তচাপ বৃদ্ধি করে তা স্বাভাবিক করতে সাহায্য করে। পাশাপাশি দেহের কোলেস্টেরল নিয়ন্ত্রণ করে উচ্চ রক্তচাপ হ্রাস করে শরীরে রক্তচাপের স্বাভাবিক মাত্রা বজায় রাখে।

মাথাব্যথা কমায়

মাথা ব্যথায় কপালে উভয় চিবুকে ও কানের পার্শ্ববর্তী স্থানে দৈনিক ৩/৪ বার কালোজিরা তেল মালিশ করলে ব্যথা কমে যায়। তাই মাথা ব্যথা কমাতে এটি ব্যবহার করতেই পারেন।

দাঁতের ব্যথা কমায়

দাঁতে ব্যথা হলে কুসুম গরম পানিতে কালিজিরা দিয়ে কুলি করলে ব্যথা কমে। শুধু তাই নয়, জিহ্বা, তালু, দাঁতের মাড়ির জীবাণু ধ্বংস করতেও গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখে এটি।

চুল পড়া রোধ করে

লেবু দিয়ে সমস্ত মাথার খুলি ভালোভাবে ঘষে ১৫ মিনিট পর শ্যাম্পু দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। পরে ভালোভাবে মাথা মুছে ফেলুন। এবার মাথার চুল ভালোভাবে শুকানোর পর পুরো মাথায় কালোজিরা তেল মালিশ করুন। এভাবে করলে দেখবেন ১ সপ্তাতেই চুল পড়া বন্ধ হবে।

পিঠে ব্যথা দূর করে

কালোজিরার থেকে তৈরি তেল আমাদের দেহে বাসা বাঁধা দীর্ঘমেয়াদী রিউমেটিক এবং পিঠে ব্যথা দূর করতে সাহায্য করে। এছাড়া সাধারণভাবে কালোজিরা খেলেও অনেক উপকার পাওয়া যায়।

যৌনক্ষমতা বৃদ্ধি করে

কালোজিরা নারী-পুরুষ উভয়ের যৌনক্ষমতা বৃদ্ধি করে। প্রতিদিন খাবারের সঙ্গে কালোজিরা খেলে পুরুষের স্পার্ম সংখ্যা বৃদ্ধি পায়। এটি পুরুষত্বহীনতা থেকে মুক্তির সম্ভাবনাও তৈরি করে।

স্মৃতিশক্তি বাড়ায়

নিয়মিত কালোজিরা খেলে দেহে রক্ত সঞ্চালন ঠিকমতো হয়। এতে করে মস্তিস্কে রক্ত সঞ্চালনের বৃদ্ধি ঘটে; যা আমাদের স্মৃতিশক্তি বৃদ্ধি করতে সাহায্য করে।

হাঁপানী উপশমে

হাঁপানী বা শ্বাসকষ্টজনিত সমস্যা সমাধানে কালোজিরা দারুণ কাজ করে। প্রতিদিন কালোজিরার ভর্তা খেলে হাঁপানি বা শ্বাসকষ্টজনিত সমস্যা উপশম হয়।

শিশুর দৈহিক ও মানসিক বৃদ্ধিতে

নিয়মিত কালোজিরা খাওয়ালে দ্রুত শিশুর দৈহিক ও মানসিক বৃদ্ধি ঘটে। এটি শিশুর মস্তিষ্কের সুস্থতা এবং স্মৃতিশক্তি বৃদ্ধিতেও অনেক কাজ করে।



« (পূর্বের সংবাদ)