মেইন ম্যেনু

রাস্তায় পড়ে গেলেন মমতা

momota

নোট -বাতিলের প্রতিবাদ দিল্লির রাজপথে নিয়ে গিয়েছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়৷ কিন্ত্ত শুরুতেই ধাক্কা ! একেবারে আক্ষরিক অর্থে৷ সে ধাক্কায় রাস্তায় পড়েই গেলেন তিনি৷ সামান্য চোটও পেলেন৷ তবে তাতে তাঁর বুধবারের দিনলিপিতে বিন্দুমাত্র ছেদ পড়েনি৷ কী ভাবে পড়লেন, সে ব্যাখ্যায় উঠে আসছে দিল্লি পুলিশের একটি সিদ্ধান্ত নিয়ে প্রশ্ন৷

অনেকেই বলছেন , যে ভাবে এ দিন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের মিছিল নিয়ে যাওয়া হয়েছে , তা নিতান্ত কাণ্ডজ্ঞানহীনের কারবার৷ বিজয় চক ছাড়িয়ে নর্থ ও সাউথ ব্লকের মাঝের রাস্তা দিয়ে তখন সঙ্গীদের নিয়ে রাইসিনা হিলসে উঠছিলেন পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী৷ চতুর্দিক থেকে ঝাঁপিয়ে পড়া টিভি ক্যামেরা এবং চিত্রসাংবাদিকদের আটকাতে প্রথম থেকেই দিল্লি পুলিশ মোটা নাইলনের দড়ি দিয়ে নিরাপত্তার ঘেরাটোপ তৈরি করেছিল৷ দেখে মনে হচ্ছিল একটা চলমান বর্গক্ষেত্র , যার চার দিকের দড়ি ধরেছিলেন প্রায় ষাট জন পুলিশকর্মী৷ মিছিলে অন্যদের সঙ্গে কথা বলতে বলতে মমতা তখন দড়ির বর্গক্ষেত্রের একেবারে শেষ প্রান্তে৷

আচমকা সামনের দিকে পুলিশের টানে সেই দড়ি মমতার কোমরে ধাক্কা দেয়৷ পিছনের দিকে প্রায় চিত্ হয়ে পড়ে যান মুখ্যমন্ত্রী , রাজপথের উপরেই৷ তড়িত্গতিতে উঠে পড়েন ঠিকই , কিন্ত্ত ততক্ষণে সাংসদ কল্যাণ চট্টোপাধ্যায় প্রচণ্ড বকাবকি শুরু করেছেন দিল্লি পুলিশের কর্মীদের৷ ধমক দেওয়ারই কথা৷ এ ধরনের মিছিলের ক্ষেত্রে সাধারণত হাত দিয়ে নিরাপদ জায়গা তৈরি করেন পুলিশ ও নিরাপত্তাবাহিনীর কর্মীরা৷ এ ভাবে দড়ি দিয়ে নিয়ে গেলে যে কোনও সময়ে বড় ঘটনা ঘটতে পারে , সেটা বুঝতেই পারেনি দিল্লি পুলিশ৷ শেষ পর্যন্ত বড় কোনও ঘটনা ঘটেনি ঠিকই , কিন্ত্ত মুখ্যমন্ত্রী যে ভাবে পড়েছেন , তাতে গুরুতর আঘাত পাওয়ার সম্ভাবনা ছিল ষোল আনা৷ এইসময়