মেইন ম্যেনু

শহরের এই চা’য়ের দোকানে চা’য়ের সঙ্গে যৌনতা ফ্রী!

এই দোকানে কফির সঙ্গেই মিলবে যৌনসুখ! প্রত্যেক চুমুকেই থাকবে সুখের খোঁজ। ভাবছেন তো একি কান্ড। এমন হয় নাকি! হ্যাঁ হয়। সম্প্রতি সুজারল্যান্ডের এই কফিশমে আসা কাস্টমারদের জন্যে এমনই ব্যবস্থা রাখা হয়েছে। যদিও এখনও পর্যন্ত এই দোকানটি খোলেনি। মনে করা হচ্ছে, সবকিছু ঠিকঠাক থাকলে চলতি বছরের শেষের দিকে চালু হবে এই কফিশপটি। কিন্তু একটাই সমস্যা, এই দোকানে আপনার যৌন চাহিদা মেটাতে থাকবে না কোনও যৌনকর্মী! সেক্স ডল কিংবা রোবট দিয়েই পূরণ করতে হবে যৌনতার স্বাদ।

এই কফি শপে কি কি থাকবে? কতৃপক্ষ বলছে, কফি অর্ডার করার পর পছন্দমতো রোবট কিংবা সেক্স ডল বাছার সুযোগ দেওয়া হবে পুরুষ ও মহিলা কাস্টমারদের। সেই রোবটরা তাঁদের সঙ্গে ওরাল সেক্স করবে। ইতিমধ্যেই সেক্স রোবট নির্মাণসংস্থার সঙ্গে এই নিয়ে কথা বলা হয়েছে। যা কিনতে খরচ প্রায় ২ হাজার ৪০০ পাউন্ড। কিন্তু, এরজন্য কাস্টমারদের কত টাকা খসবে, তা অবশ্য জানানো হয়নি। অন্যদিকে, ইতিমধ্যে এই কফি শপ চালু করা নিয়ে শুরু হয়েছে জোর সমালোচনা। প্রশাসন এই কফির দোকান চালু করার অনুমতি দিলেও, বাণিজ্যিকমহল বিষয়টি নিয়ে খুশি নয়। কারণ তাঁদের মতে, এই শপ চালু হলে তরুণ প্রজন্ম বেপথে চলে যাবে।

যদিও কফিশপের কাস্টমারদের যৌনসুখ দেওয়ার পরিকল্পনা নতুন কিছু নয়। এই বছর জেনেভায় এরকম একটি কফিশপ খুলেছে, যেখানে কফি অর্ডার করার পর কাস্টমাররা চাইলেই যৌনসুখ পেতে পারেন। তার জন্য সেখানে রয়েছেন যৌনকর্মীরা। থাইল্যান্ডেও চালু রয়েছে এরকম কফিশপ। তবে এই কফিশপের পরিকল্পনাটাই একেবারে আলাদা।