মেইন ম্যেনু

সকালে যে কাজগুলো করবেন, যেগুলো করবেন না

কিছু কাজ সকালে না করাই ভালো৷ কাজগুলো ঘুম থেকে উঠেই না করে পরে করলে অনেক উপকার৷ আবার কিছু কাজ ঘুম থেকে উঠেই করে ফেলা ভালো৷ জেনে নিন…

ই-মেইল দেখবেন না : ‘নেভার চেক ই-মেইল ইন দ্য মর্নিং’ বইয়ের লেখিকা ইউলি মর্গেনস্ট্যার্ন মনে করেন, সকালে ঘুম থেকে উঠে মেইল চেক না করাই ভালো৷ তাতে মন খারাপ হবার মতো কোনো মেইল দেখে দিনের শুরুটা খুব খারাপ হতে পারে৷ সুন্দর সকালটাকে সুন্দর রাখতে তাই দিনের অন্য কোনো সময়ে মেইল দেখার পরামর্শ দিয়েছেন তিনি৷

সোশ্যাল মিডিয়া থেকে দূরে : ফেসবুক, টুইটার অনেকের কাছে নেশার মতো৷ তাদের তো বটেই, অন্যদেরও ঘুম থেকে উঠে অনেকটা সময় সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে না কাটানোই ভালো৷ এর ফলে কর্মক্ষমতা কিছুটা লোপ পায়৷ দিন শুরুর আগেই কর্মক্ষমতা কমানোর কী দরকার?

বেডরুম গুছিয়ে ফেলুন : ভালো অভ্যাসের অনেক উপকারি দিক থাকে৷ যেমন ঘুম থেকে উঠেই ঘর গোছানো৷ ‘দ্য পাওয়ার অফ হ্যাবিট’ গ্রন্থের লেখক চার্লস ডুহ্যিগ মনে করেন, সকালেই শোবার ঘরটা গুছিয়ে নিলে মন বেশ ফুরফুরে থাকে৷ তাতে কাজের আগ্রহও বাড়ে৷

মন দিয়ে নাস্তা করুন : অনেকেই সকালের নাস্তা, অর্থাৎ ব্রেকফাস্টকে খুব একটা গুরুত্ব দেননা৷ কিন্তু সময় মতো ব্রেকফাস্ট করা খুব দরকার৷ সকালের স্বাস্থ্যসম্মত খাবার পাকস্থলি ভালো রাখতে সহায়তা করে৷ কাজকর্মেও এর ভালো প্রভাব পড়ে৷

সকালে কাজের তালিকা ছোট রাখুন : চোখ খুলেই রেডিয়োটা ছাড়ো, এক গ্লাস পানি খাও, গোসল সেরে নাস্তা করো, তৈরি হয়ে বেরিয়ে পড়ো- দিন শুরুর আগে ছোটখাটো কাজের তালিকা এর চেয়ে বেশি দীর্ঘ না করাই ভালো৷ এমন কাজ বেশি করা মানে নিজের ওপর চাপ তৈরি করা৷ দিন ভালো কাটাতে চাইলে এমনটি না করাই শ্রেয়৷ ডয়েস ভেলে।