মেইন ম্যেনু

গুঞ্জনই সত্যি হলো : শেখ হাসিনা সভাপতি, ওবায়দুল কাদের সম্পাদক

গুঞ্জনই সত্যি হলো। কয়েকদিন আগে থেকে যে গুঞ্জন চলছিল, তা সত‌্যি করে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক হলেন ওবায়দুল কাদের। বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের দুইদিনব্যাপী ২০তম জাতীয় সম্মেলন শেষে শেখ হাসিনা সভাপতি ও ওবায়দুল কাদের সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হয়েছে।

দ্বিতীয় দিন রবিবার বিকেলে কাউন্সিলরদের বিপুল সমর্থন নিয়ে তার এ পদে নির্বাচিত হন।

সৈয়দা সাজেদা চৌধুরী সভাপতি পদে শেখ হাসিনার নাম এবং বর্তমান সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম সাধারণ সম্পাদক পদে ওবায়দুল কাদেরের নাম প্রস্তাব করেন।

এসময় নির্বাচন কমিশনার অ্যাডভোকেট ইউসুফ হোসেন হুমায়ুন এই প্রস্তাব সমর্থন করলে উপস্থিত কাউন্সিলররাও সমর্থন করেন।

এই নিয়ে ৮মবারের মতো জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সভাপতি হলেন।

এছাড়া আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হয়েছেন দলের প্রেসিডিয়াম সদস্য ওবায়দুল কাদের। তিনি বর্তমানে সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বে রয়েছেন।

সিকি শতক পর বাংলাদেশকে সমৃদ্ধ দেশের কাতারে নিয়ে যাওয়ার যে স্বপ্ন শেখ হাসিনা দেখছেন, সেই লক্ষ‌্য পূরণে তার সঙ্গী হলেন সড়ক পরিবহনমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।

রোববার ক্ষমতাসীন দলটির কাউন্সিল অধিবেশনের শেষ পর্বে শেখ হাসিনা সভাপতি পদে পুনর্নির্বাচিত হওয়ার পর সাধারণ সম্পাদক পদেও নির্বাচন হয়।

দুটি পদে আরও কোনো নাম প্রস্তাব না আসায় কাউন্সিলের জন‌্য গঠিত আওয়ামী লীগের নির্বাচন কমিশনের প্রধান ইউসুফ হোসেন হুমায়ুন দুজনকে নির্বাচিত ঘোষণা করেন।

রাজধানীর ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশনে সম্মেলনের দ্বিতীয় দিনে দলীয় সভানেত্রী শেখ হাসিনা বর্তমান কমিটি বিলুপ্ত ঘোষণা করার পরপরই নির্বাচনী অধিবেশন শুরু হয়।

নতুন নেতৃত্ব বেছে নিতে শেখ হাসিনা আহ্বান জানিয়ে এলেও নির্বাচনী অধিবেশনের শুরুতেই বঙ্গবন্ধুকন‌্যার নামই সভাপতি পদের জন‌্য প্রস্তাব করেন প্রবীণ নেত্রী বিদায়ী সভাপতিমণ্ডলীর সদস‌্য সৈয়দা সাজেদা চৌধুরী। তা সমর্থন করেন সভাপতিমণ্ডলীর আরেক সদস‌্য ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন।

বিদায়ী সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম নতুন সাধারণ সম্পাদক হিসেবে ওবায়দুল কাদেরের নাম প্রস্তাব করলে তা সমর্থন করেন বিদায়ী যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর কবির নানক।

এরপর সভাপতিমণ্ডলী গঠন করা হয়। বিদায়ী সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আশরাফের স্থান হয়েছে গুরুত্বপূর্ণ এই পরিষদে।

সভাপতিমণ্ডলীতে তার পাশাপাশি নতুন এসেছেন নুরুল ইসলাম নাহিদ, আব্দুর রাজ্জাক, ফারুক খান, আবদুল মান্নান খান, রমেশ চন্দ্র সেন ও পীযূষ কান্তি ভট্টাচার্য (যশোর)।

পুরনোদের মধ‌্যে সভাপতিমণ্ডলীতে থাকছেন সৈয়দা সাজেদা চৌধুরী, মতিয়া চৌধুরী, শেখ ফজলুল করিম সেলিম, মোহাম্মদ নাসিম, কাজী জাফর উল‌্যাহ, সাহারা খাতুন, ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন।

পুরনো যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহাবুব-উল আলম হানিফ, দীপু মনি, জাহাঙ্গীর কবির নানকের সঙ্গে নতুন যোগ হয়েছেন আব্দুর রহমান।

কোষাধ‌্যক্ষ পদে এন এইচ আশিকুর রহমানই থাকছেন নতুন কমিটিতে।

২০০৭ সালের জরুরি অবস্থার পর দুঃসময়ে দলের হাল ধরতে এগিয়ে আসা আশরাফ ২০০৯ সালে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হয়েছিলেন।

বঙ্গবন্ধুর ঘনিষ্ঠ সহচর সৈয়দ নজরুল ইসলামের ছেলে আশরাফের উপর ভরসা রেখে তাকে মন্ত্রিসভায় গুরুত্বপূর্ণ পদে এনেছিলেন শেখ হাসিনা।

দলের নেতা-কর্মীরা আশরাফকে সহজে পান না বলে অভিযোগের মধ‌্যেও হেফাজত ও বিএনপির আন্দোলন পেরিয়ে নির্বাচন করার দক্ষতায় তার উপর ভরসা রেখে যান বঙ্গবন্ধুকন‌্যা।

তবে গত বছর আকস্মিকভাবে আশরাফকে মন্ত্রিসভায় দপ্তরছাড়া করার পর সেই ভরসায় চিড় ধরার ইঙ্গিত মিললেও সপ্তাহের ব‌্যবধানে ফের তাকে মন্ত্রিসভায় এনেছিলেন শেখ হাসিনা।

এবার কাউন্সিলে কয়েকদিন আগে থেকে গুঞ্জন ছড়ায় যে সাধারণ সম্পাদক পদে পরিবর্তন আসছে। সভাপতিমণ্ডলীর সদস‌্য ওবায়দুল কাদের তার ঘনিষ্ঠজনদের বলেন, নেত্রী তাকে ‘তৈরি’ থাকতে বলেছেন।

তবে নেতৃত্বে কী হবে, সে বিষয়ে মুখ খুলছিলেন না কেউই। এর মধ‌্যেই আশরাফ বলেন, নেতৃত্বে কে আসবে, তা শুধু শেখ হাসিনা ও তিনিই জানেন।

এই বক্তব‌্যের মধ‌্য দিয়ে দৃশ‌্যত দলে শেখ হাসিনার কাছে নিজের গুরুত্ব তুলে ধরেন জনপ্রশাসনমন্ত্রী আশরাফ।

কাউন্সিলে তিনিই নতুন সাধারণ সম্পাদক হিসেবে সড়ক পরিবহনমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের নাম প্রস্তাব করেন। এজন‌্য কাউন্সিলে আশরাফকে ধন‌্যবাদও জানান শেখ হাসিনা।

সড়ক পরিবহনমন্ত্রী হিসেবে ছুটোছুটি করে আলোচিত ওবায়দুল কাদেরকে সাধারণ সম্পাদক হিসেবে পাওয়ায় দল আরও শক্তিশালী হবে বলেও মনে করছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

৬৪ বছর বয়সী ওবায়দুল কাদের সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হয়ে দলীয় সভানেত্রী শেখ হাসিনার পা ছুঁয়ে সালাম করেন। এরপরই জড়িয়ে ধরেন সৈয়দ আশরাফকে।

আশরাফের সঙ্গে আলিঙ্গন শেষ করে কাদের সাহারা খাতুনেরও পা ছুঁয়ে সালাম করেন।

পঁচাত্তরে বঙ্গবন্ধু হত‌্যাকাণ্ডের পর বিরূপ সময়ে ছাত্রলীগের সভাপতির দায়িত্ব পালনকারী ওবায়দুল কাদের ডাকসুতে সংগঠনের হয়ে ভিপি প্রার্থী হয়েছিলেন। ছাত্রজীবন শেষে দৈনিক বাংলার বাণীতে কাজ করতেন।

গত কাউন্সিলে সভাপতিমণ্ডলীতে আসার আগে তিনি যুগ্ম সাধারণ সম্পাদকের পদেও ছিলেন। ২০০৮ সালে সেনা নিয়ন্ত্রিত তত্ত্বাবধায়ক সরকার আমলে গ্রেপ্তার থাকাকালে ছড়িয়ে পড়া একটি ভিডিও নিয়ে সমালোচিত ওবায়দুল কাদের।

সম্মেলনস্থল থেকে বের হয়ে গাড়িতে ওঠার সময় সৈয়দ আশরাফকে জড়িয়ে ধরেন শেখ হাসিনা। আশারাফও এ সময় প্রধানমন্ত্রীকে জড়িয়ে ধরেন।

শেখ হাসিনা তার আগে কাউন্সিলে বলেন, “আশরাফুলকে আন্তরিক ধন্যবাদ জানাই, ও আমার ছোট ভাইয়ের মতো। শহীদ পরিবারের সন্তান হিসেবে সে সংগঠন ও দেশকে ভালবেসেছে। স্বতঃস্ফূর্তভাবে ওবায়দুল কাদেরের নাম প্রস্তাব করেছে, ধন্যবাদ জানাই। আশা করি সংগঠন আরও শক্তিশালী হবে।”

এবার কাউন্সিলের কিছু দিন আগে থেকে দায়িত্ব ছাড়ার ইচ্ছার কথা জানিয়ে আসছিলেন ৭০ বছরে পা দেওয়া শেখ হাসিনা। কাউন্সিলেও কয়েকবারই নতুন নেতৃত্ব বেছে নেওয়ার কথা বলেছিলেন ৩৫ বছর ধরে আওয়ামী লীগে নেতৃত্ব দিয়ে আসা বঙ্গবন্ধুকন‌্যা।

তবে যতবারই তিনি একথা বলেছেন, ততবারই কাউন্সিলর ও নেতারা ‘না না’ বলে সরব হয়েছিলেন।

২০তম কাউন্সিলে ফের সভাপতি নির্বাচিত নির্বাচিত হয়ে শেখ হাসিনা আবারও পরবর্তী নেতৃত্ব ঠিক করার তাগিদ দেন নেতাদের। একই সঙ্গে প্রধানমন্ত্রী ও সংগঠনের দায়িত্ব পালন যে কঠিন, তাও মনে করিয়ে দেন তিনি।

“যে গুরু দায়িত্ব আপনারা আমাকে দিয়েছেন, তা বহন করব। ৩৫ বছর একটা দলের সভাপতি, তবে একটা সময় আমাকে বিদায় নিতে হবে।”

এবার প্রথম আওয়ামী লীগের কাউন্সিলর হিসেবে সম্মেলনে যোগ দেওয়া সজীব ওয়াজেদ জয়কে নেতৃত্বে চেয়ে দাবি তুলেছিলেন তৃণমূল নেতারা। তবে প্রধানমন্ত্রীর যুক্তরাষ্ট্রপ্রবাসী এই ছেলে তা নাকচ করে বলেন, বিদেশে থেকে দলীয় পদ রাখতে চান না তিনি।