মেইন ম্যেনু

সভাপতি সানির প্যানেলে সাধারণ সম্পাদক ফেরদৌস

চলচ্চিত্রে বইছে নির্বাচনী হাওয়া। সামনেই চলচ্চিত্র পরিচালক সমিতির নির্বাচন। এরপরই অনুষ্ঠিত হবে চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির নির্বাচন।

শিল্পীদের নির্বাচনকে কেন্দ্র করে জমে উঠেছে ফিল্ম পাড়া। আগামী ফেব্রুয়ারিতেই শেষ হয়ে যাবে বর্তমান শিল্পী সমিতির মেয়াদ। এরপর থেকেই মূলত নতুন সমিতির জন্য মাঠে নামবেন তারকারা।

এরই মধ্যে অনেকেই প্রার্থীতা দাবি করে প্রচারণায় নেমেছেন। তাদের মধ্যে অন্যতম চিত্রনায়ক ওমর সানি। চলতি মাসের শুরুর দিকেই তিনি ঘোষণা দিয়েছিলেন, আগামী শিল্পী সমিতির নির্বাচনে সভাপতি পদে লড়বেন। তবে কে হবে সেক্রেটারি সে বিষয়টি জানা যায়নি। এই পদটি নিয়ে যখন চলছে তুমুল আলোচনা, উঠে আসছিলো বেশ কিছু নাম; ঠিক তখনই ওমর সানি জানালেন তার প্যানেল থেকে সাধারণ সম্পাদক পদের জন্য মনোনীত হয়েছেন আরেক চিত্রনায়ক ফেরদৌস।

শনিবার রাতে নাইম-শাবনাজ অভিনীত `চাঁদনী` ছবির ২৫ বছর পূর্তি উপলক্ষে একটি জমকালো আয়োজনে আলাপকালে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন ওমর সানি।

তিনি বলেন, ‌‘আমি শিল্পী সমিতিতে বর্তমানে সহ-সভাপতি পদে দায়িত্ব পালন করছি। শিল্পীদের ইচ্ছা এবং পরামর্শে এবং নিজের দায়িত্ববোধ থেকে এবারে সভাপতি পদের জন্য লড়াই করবো। আর আমার সঙ্গে সাধারণ সম্পাদক হিসেবে থাকছেন ফেরদৌস। চলিচ্চিত্রে ফেরদৌসের ভালো একটি ইমেজ আছে। ওকে সঙ্গে নিয়ে নির্বাচন জমজমাট হবে বলেই প্রত্যাশা করছি। সব মিলিয়ে চলচ্চিত্র শিল্পীদের জন্য আমরা ভালো কিছু বয়ে আনতে চাই। সবার সহযোগিতা কামনা করছি’।

এ বিষয়ে ফেরদৌস বলেন, ‘সানী ভাই আমাকে তার প্যানেলের জন্য ভেবেছেন এটা আমার কাছে সম্মানের একটি বিষয়। আমি বরাবরই চলচ্চিত্রের জন্য নিজেকে নিবেদিত মনে করি। সাংগঠনিকভাবে শিল্পীদের সেবায় কিছু করতে পারলে নিজেকে ধন্য মনে করবো’।

২০১৭ সালের ফেব্রুয়ারিতে শেষ হয়ে যাবে বাংলাদেশ শিল্পী সমিতির নির্বাচিত বর্তমান কমিটির দায়িত্ব। এরপরই নব্বই দিনের মধ্যে নতুন কমিটি গঠনে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। দ্বি-বার্ষিক এই নির্বাচনে আরেকটি প্যানেল থেকে সভাপতি পদে নির্বাচন করবেন মিশা সওদাগর।

এর আগে, ২০১৫ সালের ৩০ জানুয়ারি শিল্পী সমিতির বর্তমান কমিটির নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। সেখানে সভাপতি পদে চিত্রনায়ক শাকিব খান, সহ-সভাপতি পদে ওমর সানি এবং সাধারণ সম্পাদক জয়লাভ করেন অমিত হাসান।