মেইন ম্যেনু

সরকারি হাসপাতালে সাংবাদিকদের বিনামূল্যে চিকিৎসা : স্বাস্থ্যমন্ত্রী

Nasim_md20160323082143

ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির (ডিআরইউ) সদস্য ও অ্যাক্রিডিটেশন কার্ডধারী সাংবাদিকদের জন্য দেশের সকল সরকারি হাসপাতালে বিনামূল্যে চিকিৎসাসেবার ঘোষণা দিয়েছেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম। মঙ্গলবার ডিআরইউ আয়োজিত চারদিনের স্বাস্থ্যসেবা ক্যাম্প উদ্বোধন ও প্রয়াত সদস্য সন্তানদের শিক্ষাবৃত্তি প্রদান অনুষ্ঠানে তিনি এ ঘোষণা দেন।

এ বিষয়ে প্রজ্ঞাপন জারি করতে তিনি তাৎক্ষণিকভাবে স্বাস্থ্য অধিদফতরের পরিচালক (হাসপাতাল) ডা. আবুল কায়সার মাহমুদ সাইফুর রহমানকে নির্দেশও দেন। ডিআরইউ সাধারণ সম্পাদক রাজু আহমেদ তার ফেসবুক ওয়ালে এ বিষয়ে একটি পোস্টও দিয়েছেন।

ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির সভাপতি জামাল উদ্দীনের সভাপতিত্বে এবং সাধারণ সম্পাদক রাজু আহমেদের পরিচালনায় অনুষ্ঠানে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের সহকারী অধ্যাপক ডা. শাহজাদা সেলিম, নভো নরডিক্স-এর হেড অব মার্কেটিং ড. মোহাম্মদ সাইফুল বক্তব্য রাখেন।

মোহাম্মদ নাসিম বলেন, বেসরকারি মেডিকেল কলেজের ব্যাপারে আমাদের সতর্ক হওয়ার সময় এসেছে। অতীতে চিন্তাভাবনা না করেই অনেক মেডিকেলের অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। সরকারি নীতিমালা না মানায় বিভিন্ন সময়ে ইতোমধ্যে চারটি বেসরকারি মেডিকেল কলেজ বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। বেসরকারি মেডিকেল কলেজগুলো সরকারি নীতিমালা মেনে চলছে কিনা দেখা হচ্ছে। যেসব মেডিকেল কলেজ সরকারি নীতিমালার আলোকে ব্যবস্থা নেয়নি তাদের বিরুদ্ধে অবশ্যই ব্যবস্থা নেওয়া হবে। পর্যায়ক্রমে বন্ধ করে দেওয়া হবে। রাজনৈতিক কোনো চাপের কাছে আমি নতি শিকার করবো না। যে চারটি অস্থায়ীভাবে বন্ধ করে দিয়েছিলাম, উন্নতি না হলে স্থায়ীভাবে বন্ধ করে দেব। সেখানে শিক্ষক আছে কিনা, লাইব্রেরি আছে কিনা, ল্যাবরেটরি আছে কিনা দেখা হবে।

তিনি আরো বলেন, ঢাকা শহরে ব্যাঙের ছাতার মতো ডায়াগনস্টিক সেন্টার গড়ে উঠছে। পাড়া মহল্লায় যেভাবে ডায়াগনস্টিক সেন্টার গড়ে উঠছে দুনিয়ার কোথাও এমনটি নেই। একটা সীমার মধ্যে সরকারি-বেসরকারি হাসপাতাল হতে হবে। যত্রতত্রভাবে ডায়াগনস্টিক সেন্টার হতে পারে না। এখানে স্বাস্থ্য অধিদফতরের ডিরেক্টর (হাসপাতাল) আছেন, কত দূরত্বের মধ্যে হাসপাতাল হবে-একটা সীমানা পুনঃনির্ধারণ করে দেবেন।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, দেশে ডায়বেটিস মহামারী আকার ধারণ করেছে। এটি একটি বিপদজনক রোগ হয়ে দাঁড়িয়েছে। চিকিৎসার চাইতে প্রতিরোধে আমাদের গুরুত্ব দিতে হবে।