মেইন ম্যেনু

সাধারণ রাস্তায় নয়, মাটির নীচ দিয়ে ছুটবে এই গাড়ি!

1478264403

পাতাল রেল চড়েছেন কলকাতায়। পাতাল বাসে চড়েছেন কখনও? ভারতের মধ্যে কলকাতাতেই প্রথম পাতালে ছুটেছিল রেলগাড়ি। এবার এই রাজ্যেই পাতালে ছুটবে বাসও। তবে সাধারণ যাত্রীরা একটু হতাশ হতেই পারেন! কারণ এই বাস পরিষেবা শুধুমাত্র মিলবে খনি শ্রমিকদের জন্য।

ভারতের মধ্যে এই প্রথমবার মাইনিং বাসের ব্যবহার করতে চলেছে ইসিএল। খনিতে কয়লা তোলার কাজে যুক্ত শ্রমিকদের খনিগর্ভে পায়ে হেঁটে যেতে হয় মাইলের পর মাইল। ডুলির মাধ্যমে খনিতে নেমে তার পরে নির্দিষ্ট গন্তব্যে পৌঁছে কয়লা খনন করতে হয় শ্রমিকদের। ভূগর্ভস্থ খনিগুলিতে এমনই ব্যবস্থা চালু রয়েছে সেই ব্রিটিশ আমল থেকে।

বাস পরিষেবা শুরু হলে প্রযুক্তি চালু হওয়ায় এবারে শ্রমিকরা খনিগর্ভে পায়ে হেঁটে যাতায়াতের সমস্যা থেকে মুক্তি পাবেন। মাইনিং বাস একেবারে খনিমুখ থেকে ভূগর্ভ পর্যন্ত নিয়ে যাবে খনি শ্রমিকদের। কোল ইন্ডিয়ায় প্রথমবার রানিগঞ্জের ঝাঁঝরা খনিতে এই প্রযুক্তি চালু হতে চলেছে।

ইসিএলের সিএমডি কারিগরি সচিব নিলাদ্রী রায় জানান, ‘মাইনিং বাসকে খনির পরিভাষায় বলা হয় ম্যান রাইডিং ড্রিফট রানার। মাইনিং বাস চালু হলে পথ হাঁটার ক্লান্তি আর থাকবে না খনি শ্রমিকদের মধ্যে। তাতে অনেকটা সময় বাঁচবে, কয়লা তোলার পরিমাণও বাড়বে। খনিগর্ভে শ্রমিকদের নিরাপত্তা আরও সুনিশ্চিত হবে।’

বিদেশে খনিগর্ভে বাস নামানোর প্রযুক্তি দেখে অস্ট্রেলিয়া থেকে তিনটি বাস আনানোর পরিকল্পনা করে ভারতের ইসিএল। যার মধ্যে একটি আনা হয়েছে। খনির ভিতরে চলার জন্য বিশেষভাবে তৈরি করা হয়েছে বাসটিকে। ডিজেল চালিত এই বাসটির উচ্চতা ৬ ফুটের বেশি নয়। ৩০ জন শ্রমিক একসঙ্গে চড়তে পারবেন এই বাসে। সব মিলিয় এই প্রকস্পে ১৯০ কোটি টাকা ব্যয় হবে। এবেলা