মেইন ম্যেনু

সাবধান, অনলাইনে বাচ্চাদের ছবি পোস্ট করার আগে বিশেষজ্ঞদের হুঁশিয়ারি জেনে নিন

1477294019

নতুন এক গবেষণায় দেখা গেছে, যে বাবা-মায়েরা তাদের বাচ্চাদের ছবি সামাজিক গণমাধ্যমে পোস্ট করেন এবং অন্যান্য ডিজিটাল প্ল্যাটফর্মে শেয়ার করেন তারা তাদের সন্তানদের জন্য ভবিষ্যতে কোনো অপ্রত্যাশিত বিপদ ডেকে আনতে পারেন।

সামাজিক গণমাধ্যমে বাচ্চাদের ছবি শেয়ারের মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়লে তা শিশু শারীরিক নিপীড়কদের বা পরিচয় চোরদের হস্তগতও হতে পারে বলে ওই গবেষণার পর হুঁশিয়ারি দেওয়া হয়।

যুক্তরাষ্ট্রের ফ্লোরিডা কলেজ অফ মেডিসিন বিশ্ববিদ্যালয়ের সহকারি অধ্যাপক বাহারেহ কেইথ বলেন, “ডিজিটাল বিশ্বে গত অল্প কয়েক বছরে আমাদের বাচ্চাদের যে পরিমাণ তথ্য রাখা হয়েছে তা টলটলায়মান অবস্থায় রয়েছে।”

বাচ্চারা ইন্টারনেট ব্যবহার করার সময় কীভাবে তাদেরকে সুরক্ষিত রাখা যাবে তা নিয়ে প্রায়ই বাবা-মায়েরা চিন্তিত থাকেন। কিন্তু নিজেরা যখন সামাজিক গণমাধ্যম ব্যবহার করেন তখন বাচ্চারা কোনোভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে কিনা তা নিয়ে একটুও মাথা ঘামান না বাবা-মায়েরা।

গবেষকরা বলেন, “আমরা যখন সামাজিক গণমাধ্যমে বাচ্চাদের কোনো কিছু শেয়ার করব তখনও আমাদের কর্মকাণ্ড বাচ্চাদের বর্তমান ও ভবিষ্যতে ভালো থাকার ওপর কোনো প্রভাব ফেলছে কিনা সে ব্যাপারে সতর্ক থাকতে হবে।”

তারা আরো পরামর্শ দেন, বাচ্চাদের এমন কোনো ছবি শেয়ার করা উচিৎ হবে না যেটিতে তাদের শরীরের কোনো স্পর্শকাতর জায়গা উম্মুক্ত আছে।

গবেষণায় আরো বলা হয়েছে, অনলাইনে শিশুদের পরিচয় সংরক্ষণে বাবা-মায়েদের মধ্যে সচেতনতা বৃদ্ধিতে কাজ করতে পারেন শিশু বিশেষজ্ঞরা। এক্ষেত্রে তারা বাবা-মায়েদের জন্য কিছু মৌলিক নীতিমালাও বেঁধে দিতে পারেন।” -হিন্দুস্তান টাইমস।



(পরের সংবাদ) »