মেইন ম্যেনু

সাম্প্রদায়িক হামলার প্রতিবাদে জাতীয় স্মৃতিসৌধে মোমবাতি প্রজ্বলন

বিধান মুখার্জী, গণ বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধি : ‘সাম্প্রদায়িকতা নিপাত যাক, বাংলাদেশ মুক্তি পাক’ এই স্লোগানকে সামনে রেখে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নাসিরনগরসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে হিন্দু সম্প্রদায়ের মন্দির ও বাড়িঘরে হামলার প্রতিবাদে (সোমবার) ১৪ নভেম্বর মোমবাতি প্রজ্বলনসহ, মানববন্ধন এবং প্রতিবাদ সমাবেশ করেছে গণস্বাস্থ্য মেডিকেল কলেজ ইউনিটের সনাতন বিদ্যার্থী পরিষদ এবং গণ বিশ্ববিদ্যালয়ের সেচ্ছাসেবী সংগঠন বৃন্ত।

সোমবার বিকাল সাড়ে ৫ টায় সাভার জাতীয় স্মৃতিসৌধের সামনে এই মোমবাতি প্রজ্বলন এবং মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়।এসময় বিশ্ববিদ্যালয়ের সেচ্ছাসেবী সংগঠন বৃন্ত এর প্রতিষ্ঠাতা নাজমুল ইসলাম, সহসভাপতি নাইম জোয়ার্দার এবং সাধারণ সম্পাদক সাব্বির আহমেদ প্রিন্স, সনাতন বিদ্যার্থী পরিষদের সভাপতি প্রভাত কুমার মণ্ডল, নির্ঝর মণ্ডলসহ অন্যান্য নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

মানববন্ধনে বিচার বিভাগীয় তদন্তের মাধ্যমে হামলাকারীদের দ্রুত শনাক্ত ও গ্রেপ্তার করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির পাশাপাশি হামলায় ক্ষতিগ্রস্ত মন্দির ও ঘরবাড়ি পুনরায় নির্মাণ এবং ক্ষতিগ্রস্তদের আর্থিক ক্ষতিপূরণ দেওয়ার দাবি জানানো হয়।

23r

এসময় বিশ্ববিদ্যালয়ের কালের কণ্ঠ শুভসংঘ ইউনিটের সভাপতি রানা মিত্র প্রতিবাদ কর্মসূচীর সাথে একাত্মতা প্রকাশ করে বলেন ‘১৯৭১ সালে একটি অসাম্প্রদায়িক দেশ গড়তেই বাংলাদেশ স্বাধীন হয়। রামুসহ অন্যান্য ঘটনার বিচার না হওয়ায় বারবার এ ধরনের কর্মকাণ্ড ঘটছে’। এভাবে চললে সোনার বাংলা গঠনের স্বপ্ন স্বপ্নই থেকে যাবে বলে মন্তব্য করেন তিনি।

এসময় সনাতন বিদ্যার্থী পরিষদের প্রভাত মণ্ডলের কাছে জানতে চাইলে তিনি সবাইকে এর বিরুদ্ধে প্রতিবাদী হতে বলেন। সবাই মিলে চেষ্টা করলে এই সাম্প্রদায়িকতার মূলোৎপাটন সম্ভব বলে তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

মানববন্ধনে উপস্থিত বৃন্তের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি নাজমুল ইসলাম তার বক্তব্যে এ ঘটনার তীব্র নিন্দা জানিয়ে বলেন ‘হিন্দু, মুসলিম, বৌদ্ধ ও খ্রিস্টান নয়, বাঙ্গালী হিসেবে দেশ আমার আপনার সবার’।সাম্প্রদায়িকতার বর্বরতায় যেন কোন বাঙ্গালী দেশ ছাড়া না হয় এদিকে সরকারের সুদৃষ্টি কামনা করেন তিনি।