মেইন ম্যেনু

সিসি ক্যামেরায় উঠে এলো প্রতিমা ভাংচুরকারীর চেহারা

বরিশালের বানারীপাড়ায় কেন্দ্রীয় হরিসভা মন্দিরে দুর্গা-সরস্বতীসহ ৯টি প্রতিমা কুপিয়ে ক্ষতিগ্রস্থ করেছে এক দুর্বৃত্ত।

বৃহস্পতিবার সকালে পৌর শহরের বন্দর বাজার কেন্দ্রীয় হরি সভা মন্দিরে এ ঘটনা ঘটে।

মন্দিরের সিসি ক্যামেরার ভিডিও ফুটেজ দেখে প্রতিমা ক্ষতিগ্রস্থ করা অন্তত একজন দুর্বৃত্তকে সনাক্ত করার চেষ্টা করছে পুলিশ।

খবর পেয়ে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন বরিশালের পুলিশ সুপার এস.এম আকতারুজ্জামান, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ডিএসবি) মোল্লাহ্ আজাদ, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শহীদুল ইসলাম, বানারীপাড়ার পৌর মেয়র ও জেলা আওয়ামী লীগের আইন বিষয়ক সম্পাদক এ্যাডভোকেট সুভাষ চন্দ্র শীল, সাবেক মেয়র ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি গোলাম সালেহ মঞ্জু মোল্লা।

প্রত্যক্ষদর্শী রেনু দেবনাথ জানান, বৃহস্পতিবার সকালে বন্দর বাজারের মূল সড়ক থেকে মন্দিরের উত্তরপাশের বাড়িতে যাতায়াতের পথ দিয়ে গায়ে-মুখে গামছা পেঁচানো অবস্থায় এক ব্যক্তি মাটিকাটা খোন্তা নিয়ে মন্দিরে প্রবেশ করে।

এ সময় ওই ব্যক্তি তার হাতে থাকা খোন্তা দিয়ে কেন্দ্রীয় হরিসভা মন্দিরের উত্তর পাশের গেটের তালা ভেঙ্গে ভেতরে ঢোকেন। ওই ব্যক্তি মন্দিরের মধ্যের পাশাপাশি তিনটি ছোট মন্দিরের দুই পাশে রাধা-গোবিন্দ ও শিব মন্দিরে না ঢুকে মাঝে থাকা দূর্গা মন্দিরে প্রবেশ করেন। তিনি খোন্তা দিয়ে দিয়ে দুর্গা, সরস্বতী, লক্ষ্মী, গণেশ, কার্তিক, অসুর, সিংহ, ময়ূর ও প্যাচার মূর্তি কুপিয়ে ক্ষতিগ্রস্থ করেন।

রেনু দেবনাথ আরো জানান, কিছু বুঝে ওঠার আগেই অজ্ঞাত ওই ব্যক্তি মন্দির থেকে পালিয়ে যায়।

হরিসভা মন্দির কমিটির সাধারণ সম্পাদক বাবুল দাস বলেন, দুর্গা পূজা শেষে প্রতিমাগুলো বির্সজন না দিয়ে মন্দিরে রাখা হয়। প্রতিমা কুপিয়ে ক্ষতিগ্রস্থ করার বিষয়টি তাৎক্ষণিক পুলিশকে জানানো হয়।

খবর পেয়ে বানারীপাড়া থানার ওসি জিয়াউল আহসান ও পরিদর্শক (তদন্ত) ফারুক খাঁনসহ পুলিশ কর্মকর্তারা ঘটনাস্থালে যান। তারা মন্দিরের সিসি ক্যামেরায় ধারণকৃত ভিডিও চিত্র পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে হামলাকারীকে চিহ্নিত করার চেষ্টা করেন।

এ বিষয়ে পুলিশ সুপার এসএম আকতারুজ্জামান বলেন, মন্দিরে নিরাপত্তা ব্যবস্থা থাকা সত্ত্বেও কীভাবে এ ঘটনা ঘটলো তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

ওসি জিয়াউল আহসান বলেন, প্রতিমা কুপিয়ে ক্ষক্ষিগ্রস্থকরার ঘটনায় অজ্ঞাত ব্যক্তির বিরুদ্ধে মন্দির কমিটির সভাপতি বিবেক আনন্দকুন্ডু বাদী হয়ে মামলা দায়ের করেছেন। ওই ব্যক্তিকে গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।