মেইন ম্যেনু

সোহরাওয়ার্দীতে ‘বিএনপির সমাবেশ’ নিয়ে উত্তাল রাজনৈতিক মাঠ

bnp-logo-lg20160804181640

আগামী ৭ই নভেম্বর সোমবার ‘বিল্পব ও সংহতি দিবস’ উপলক্ষে রাজধানীর সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে যে কোন মূল্যে বড় ধরনের সমাবেশ করার চিন্তা করছে বিএনপি। অন্যদিকে আওয়ামী লীগের নেতারা বলছেন, সিপাহী বিপ্লবের নামে ৭ নভেম্বর কোনো কর্মসূচি পালন করা হলে মুক্তিযুদ্ধের স্বপক্ষের শক্তি তা কঠোর হস্তে প্রতিহত করবে। এ সমাবেশকে কেন্দ্র করে এখন উত্তাল দেশের রাজনৈতিক মাঠ।

গত ২২ ও ২৩ অক্টোবর ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগের জাঁকজমকপূর্ণ সম্মেলন আয়োজনের পর একই স্থান সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে বিএনপি একটি বড় ধরনের শোডাউনের প্রয়োজনীয়তা অনুভব করছে বলে জানিয়েছে দলটির শীর্ষ নেতারা। এজন্য বিএনপিও ৭ই নভেম্বর ‘বিল্পব ও সংহতি দিবস’ উপলক্ষে বিশাল সমাবেশের আয়োজন করতে চায়।

বিএনপি নেতারা বলছেন, সেখানে আওয়ামী লীগ তাদের কাউন্সিল করেছে। কাউন্সিলের জন্য তারা প্রায় ১ মাস ধরে প্রস্তুতি নিয়েছে। আওয়ামী লীগ এত বড় আয়োজন করতে পারলে বিএনপিও পারবে বিশাল সমাবেশ করতে।

সোমবার আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহাবুব-উল-আলম হানিফ বিএনপির উদ্দেশে বলেন, সিপাহী বিপ্লবের নামে ১৯৭৫ সালের ৭ নভেম্বর ১২শ’ সৈন্যকে মিথ্যা মামলা দিয়ে ফাঁসি দেয়া হয়েছিল। বিপ্লব দিবসের নামে কোনো কর্মসূচি পালন করার চেষ্টা করলে কঠোরভাবে তা প্রতিহত করা হবে। ন্যাক্কারজনক ওই হত্যাকাণ্ডের সমর্থন করে কর্মসূচি নিলে কাউকে আশ্রয়-প্রশ্রয় দেয়া হবে না।

অন্যদিকে মঙ্গলবার এক সংবাদ সম্মেলনে বিএনপির যুগ্ন মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী আহমেদ বলেন, আওয়ামী লীগ তাদের কাউন্সিল করেছে, জাসদ সম্মেলন করেছে, তবে বিএনপি কে কেন দিবে না। আগামী ৭ নভেম্বরের বিপ্লব ও সংহতি দিবসের সমাবেশে আওয়ামী লীগ প্রতিহত করলেও বিএনপি সমাবেশ করবে। দরকার হলে বিএনপি জলপাই পাতা নিয়ে সমাবেশে যোগ দিবে।

এদিকে বিএনপির চেয়াপারসন বেগম খালেদা জিয়া সমাবেশে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন বলে জানিয়েছে দলের একটি সূত্র। ইতিমধ্যে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) কাছে এই উদ্যানে জনসভার অনুমতি চেয়ে আবেদন করা হয়েছে বিএনপির পক্ষ থেকে।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে বিএনপির সর্বোচ্চ নীতি নির্ধারণী ফোরাম জাতীয় স্থায়ী কমিটির সদস্য ও সাবেক সেনা প্রধান মাহাবুবুর রহমান বলেন, ‘৭ নভেম্বর সমাবেশের জন্য সরকারের অনুমতি দেয়া উচিত। সমাবেশের অনুমতি দেবে না কেন? সেখানে আওয়ামী লীগ তাদের কাউন্সিল করেছে। আমরাও রাজনৈতিক প্রোগ্রাম করবো।’