মেইন ম্যেনু

হারিয়ে যাচ্ছে বানর, হনুমাদের আবাসস্থাল

মাসুদ রেজা ফিরোজী : দেশে বানর, হনুমানদের বসবাসের জায়গা ধিরেধিরে হারিয়ে যাচ্ছে। যার কারনে তাদের বাড়ছে খাবারে সংকট। এ খাবারের সংগ্রহের জন্য বানর, হনুমারা চলে আসে লোকালয়। এর কারন হিসেবে দেশের বনঅঞ্চল দিকে ঝুকে পরেছে মানুষের বিভিন্ন প্রকল্প, তার কারনে বানর, হমুনাদের থাকার জায়গাও কমে আসছে। তাই বাড়ছে তাদের খাবারের সংকট।

এদিকে বানর, হনুমানদের তাদের থাকার জায়গা যেমন কমে আসছে, ঠিক তেমনি তাদের খাবারও কমে আসছে। বন থাকলে থাকবে গাছপালা আর সেখানে থাকবে খাবার। বনের জীবজন্তুদের খাবার, থাকার সংকটে কারনে প্রায় দেখা যায় শহরে চলে আসে খাবারের সংগ্রহে জন্য বিশেষ করে বানর, মনুমানরা। এসব বানর, হনুমানদের দেশের শহরের প্রায় জাগায় দেখা যায়, তারা খবারের সংগ্রহের জন্য চলে আসতে।

দেশের জনসংখ্যা বাড়লেও বাড়েনি থাকার জায়গা। এসব মানুষকে দিতে হবে খাবার, থাকার জায়গা কিন্তু দেশের জায়গাতো আর বাড়েনি, তাই মানুষ এখন বনেরদিকে ছুটছে তাদের কর্মসংস্থার জন্য।

এদিকে বিশ্বে জলবায়ু পরিবর্তনের কারনে আরোও সম্যাসার সৃিষ্টর কারন হয়ে দাড়িছে। দেশের অনেক বনজঙ্গল এখন হমকি মুখে জলবায়ু পরিবর্ত কারনে।

মাদারীপুরের সদরের চমুগরিয়া আছে একটি বানরের আবাসস্থল, সেখানে অনেক আগে থেকেই বানরের থাকার জাগায় হিসেবে বনরা থেকে আসছে, সেখানেও তাদরে থাকার সংকট এবং খারের সংকট যে কারনে শহরের দিকে ছুটছে তারাও। এখন তাদের জন্য অতি জরুরি এ সমস্যার সমাধান করা, তবে সরকার থেকে চমুগরিয়া থাকা এসব বানরদের খাবারের সংকট কিছু সমাধান হলেও এর পুরু সমাধান হয়নি। বানরা সেখান থেকেই চলে আসে লোকালয় খাবারের জন্য। মাঝেমাঝে বানরদের শহরের বাড়িঘরের ছাদে, টিনের চালেও দেখা যায়। এমকি অনেক দুর থেকে আসা মাদারীপুরের শহরের আনাচেকানাচে হমুনাদের দেখতে পাওয়া যায়। তখন হনুমাদের দেখতে ভির করে অনেকে উদসাহি জনগন।

এখন সময় আছে এদেরকে ফিরিয়ে দিতে হবে তাদের আবাসস্থল, খাবরের ব্যবস্থা করা। অন্যথায় এসব বানর, হনুমানরা এদিন আমাদের মাঝ থেকে হারিয়ে যাবে।