মেইন ম্যেনু

হারের জন্য বাজে ফিল্ডিংকে দুষছেন মাশরাফি

বড় স্কোর গড়েও চিটাগং ভাইকিংসের বিপক্ষে জিততে পারেনি বিপিএলের ডিফেন্ডিং চ্যাম্পিয়ন কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স। এই হারের জন্য সতীর্থদের বাজে ফিল্ডিংকেই দুষছেন দলটির অধিনায়ক মাশরাফি বিন মুর্তজা।

জয়ের জন্য ১৮৪ রানের লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে শেষ তিন ওভারে চিটাগংয়ের দরকার ছিল ৩০ রান। কিন্তু ১৮ম ওভারে মোহাম্মদ শহিদের করা চতুর্থ বলে পয়েন্টে হাবিবুর রহমানের হাত ফসকে হয়ে গেল চার। এরপর থেকেই মূলত ম্যাচ হাতছাড়া হয়ে যায় কুমিল্লার। ওই ওভার থেকে ১৩ রান নেন ভাইকিংসের শোয়েব মালিক ও মোহাম্মদ নবী।

এর আগেও বেশ কয়েকবারই ভিক্টোরিয়ান্সের ফিল্ডারদের হাফ ফসকে বের হয়ে বল সীমানাছাড়া হয়েছে। সেই আক্ষেপই ম্যাচ শেষে পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে অধিনায়ক মাশরাফির কণ্ঠে ঝরালো।

মাশরাফি বললেন, ‘ব্যাটিংয়ে এই প্রথম আমরা যা চেয়েছি তাই করতে পেরেছি। কিন্তু মিস ফিল্ডিং আমাদের পিছিয়ে দিয়েছে। ক্যাচ মিসি, মিস-ফিল্ডিং না হলে ফলাফল অন্যরকম হতে পারত। অবশ্য চিটাগং ব্যাটিংও ভালো করেছে।’

লক্ষ্য তাড় করতে নেমে ব্যক্তিগত ৬ রানে তামিম ইকবালের ক্যাচ ফেলেন ইমরুল কায়েস। এরপর দ্বিতীয় উইকেটে এনামুল হক বিজয়কে নিয়ে ৪৩ বলে ৬২ রানের জুটি গড়েন তামিম। দলকে জয়ের পথে রেখেই ড্যাশিং এই ওপেনার আউট হন ৩০ রানে। ওই সময় তামিম আউট হলে ম্যাচের চিত্রটা পাল্টে যেত বলে মনে করেন মাশরাফি। ম্যাচ শেষে পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে চিটাগংয়ের অধিনায়কও বলেছেন একই কথা।

তামিম বলেন, ‘ডোয়াইন স্মিথ ভালো সূচনা এনে দেওয়া পর আমি আর এনামুল খুব সতর্ক ব্যাটিং করেছি। আমরা যত কম ঝুঁকি নিয়ে যতটা সম্ভব রান করেছি। ১০ ওভারে ৯০ রান করেছি। কিন্তু ওই সময়ে উইকেট গেলে আমরা হয়তো বিপদে পড়ে যেতাম।’

শেষ পর্যন্ত মোহাম্মদ নবী ও শোয়েব মালিকের ব্যাটিং দৃঢ়তায় ৪ বল বাকি থাকতেই ৪ উইকেট হারিয়ে জয় নিশ্চিত করে চিটাগং।