মেইন ম্যেনু

হারের পর যা বললেন মুশফিক

সাদা পোশাকে কখনো ইংল্যান্ডের বিপক্ষে জয় পায়নি বাংলাদেশ। চট্টগ্রামে ঘরের মাঠে দারুণ পারফরম্যান্সে ইংল্যান্ডকে হারানোর দুর্দান্ত এক সুয়োগ তৈরি করেছিল টাইগাররা।

কিন্তু শেষ মুহূর্তে ২২ রানের হারের আক্ষেপ নিয়ে সেই ঐতিহাসিক মুহূর্তটি উদযাপন করতে পারেনি বাংলাদেশ।

ঘরের মাঠে টেস্ট ক্রিকেটে ইংল্যান্ডের মতো বড় দলের বিপক্ষে এতটা উত্তাপ মনে হয় আগে কখনো দেখতে পায়নি বাংলাদেশের ক্রিকেট ভক্তরা। প্রতিটি দিনই ব্যাটে-বলে উত্তেজনা বিরাজ করেছিল। চট্টগ্রামের সেই উত্তাপঘেরা ম্যাচ গড়িয়েছিল পঞ্চম দিন পর্যন্ত।

কিন্তু পঞ্চম দিনের নাটকীয়তার পরে শেষ হাসি হাসতে পারেনি বাংলাদেশ। দিনের চতুর্থ ওভারে বেন স্টোকসের ৩ বলেই স্বপ্নভঙ্গ হয় বাংলাদেশের।

প্রথম ম্যাচে হারের পর টাইগার অধিনায়ক মুশফিকুর রহিম বলেন, ‘সম্ভবত এই ম্যাচটি আমাদের পক্ষে ছিল না। ৩৩ রানের জন্য হাতে ছিল মাত্র দুটি উইকেট। তবে আমাদের খেলোয়াড়রা পুরো পাঁচ দিনে ম্যাচ নিজেদের অনুকূলে নিতে বেশ খেলেছে। ১৫ মাস পর এ ধরনের ম্যাচ নিয়ে আমি সত্যিই গর্বিত।’

নিজেদের টার্গেট নিয়ে মুশফিক বলেন, ‘তারা (ইংল্যান্ড) দ্বিতীয় ইনিংসে ২৪০ রান করেছিল। আমরা প্রথম ইনিংসে ২৯০ করতে পারলে আমাদের লক্ষ্যটা আরেকটু ছোট হতো। আমাদের ক্রিকেটাররা ম্যাচটাকে বের করে আনার জন্য অসাধারণ লড়াই করেছে। আশা করি দ্বিতীয় ম্যাচেও আমরা এভাবে লড়াই করতে পারবো।”

দ্বিতীয় ইনিংসে দারুণ ব্যাটিং করা সাব্বির রহমান সম্পর্কে মুশফিক বলেন, “গত এক থেকে দেড় বছর সাব্বির অসাধারণ ব্যাটিং করে আসছে।”

চট্টগ্রামের স্পিনিং উইকেট নিয়ে তিনি বলেন, “আমি মনে করি এটা বেশ ভালো পিচ ছিল। এতে স্পিন ছিল তবে খেলার মতোই। উপমহাদেশের উইকেটে খেলতে হলে আপনাকে এর ধরন জানতে হবে এবং আমাদের ভালো কিছু স্পিনার রয়েছে “

তবে এই ম্যাচে হারের কারণে হতাশ নন মুশফিক। ম্যাচের ইতিবাচক দিকগুলো থেকে রসদ খুঁজছেন সিরিজে ফেরার।

তিনি বলেন, “আশা করি সঠিক পরিকল্পনার মাধ্যমে আমরা সিরিজে ফিরতে পারবো।”

সিরিজের দ্বিতীয় ও শেষ ম্যাচ ২৮ অক্টোবর ঢাকায় অনুষ্ঠিত হবে।