মেইন ম্যেনু

হোয়াইট হাউসে ‘পরিবারতন্ত্রের’ ছায়া!

trump_31249_1479559373

আনুষ্ঠানিকভাবে শপথ না নিলেও আমেরিকার ভাবী প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প বৃহস্পতিবার জাপানের প্রধানমন্ত্রী শিনজো অ্যাবের সঙ্গে দেখা করলেন মেয়ে ইভাঙ্কাকে নিয়ে।

গুঞ্জণ শুনা যাচ্ছে ট্রাম্প দায়িত্ব নেয়ার পর প্রথম স্ত্রীর এ মেয়েকে জাপানের রাষ্ট্রদূত নিয়োগ দেয়া হতে পারে।খবর নিউ ইয়র্ক টাইমসের।

কানাঘুষো শোনা যাচ্ছে,ট্রাম্পের জামাই জারেড কুশনারও (ইভাঙ্কার স্বামী) বেশ গুরুত্বপূর্ণ একটি পদ পেতে চলেছেন ট্রাম্পের প্রশাসনে।

এটা আমেরিকার ইতিহাসে নজীরবিহীন। হোয়াইট হাউসের ঘরানার সঙ্গে দীর্ঘ দিন ধরে পরিচিত কূটনীতিকরা এ ঘটনার পর আগামী দিনে হোয়াইট হাউস ও মার্কিন প্রশাসনে ‘পরিবারতন্ত্রের ছায়া’ দেখার আশঙ্কা করছেন।

‘ফার্স্ট লেডি’কে এ বার কীভাবে সামলাবে আমেরিকা, তার সদুত্তর পাওয়ার আগেই গোটা বিশ্ব জেনে নিল আগামী দিনে কী চোখে দেখতে হবে আমেরিকার ‘ফার্স্ট ডটার’কে!

ট্রাম্প প্লাজার বিলাসবহুল রিসিপশন রুমে জাপানের প্রধানমন্ত্রী ও তার সঙ্গী প্রতিনিধিদের সঙ্গে যখন কথা বলছিলেন ভাবী মার্কিন প্রেসিডেন্ট,তখন ইভাঙ্কাকে প্রায় সারাক্ষণই তার বাবার পাশে পাশে থাকতে দেখা যায়।

ইভাঙ্কা আগে ছিলেন আমেরিকার একজন ডাকসাইটে মডেল। এখন বিজনেস এক্সিকিউটিভ। আর ইভাঙ্কার পাশে পাশেই ছিলেন তার স্বামী রিয়েল এস্টেট ডেভেলপার ও প্রকাশক জারেড কুশনার।

ম্যানহাটনে ‘ট্রাম্প টাওয়ার’ বা ‘ট্রাম্প প্লাজা’য় জাপানি প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে ট্রাম্পের সাক্ষাৎ সরকারিভাবে সংবাদমাধ্যমকেও জানানো হয়নি।

হয়তো ট্রাম্পের উপদেষ্টারা ভেবেছিলেন,টের পাবে না কাকপক্ষীও! কিন্তু জাপানের প্রধানমন্ত্রী আমেরিকার ভাবী প্রেসিডেন্টের সঙ্গে দেখা করতে এসেছেন,আর তার পিছু নেবে না জাপানি সংবাদমনাধ্যম, তা কি হয়? হয়নি।

তারা ছবিও তুলেছে ইভাঙ্কার।সব সময়েই ইভাঙ্কার পাশে পাশে ঘোরা ইভাঙ্কার স্বামী কুশনারকেও দেখা গিয়েছে জাপানি প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে খোশগল্পে ডুবে থাকতে।