মেইন ম্যেনু

‘১৮ বছরের বিশ্বস্ততার এই প্রতিদান দিলেন আমির খান?’ প্রশ্ন কেশরের

2ww2

মুম্বই শহরেই বাড়ি ফারজানার। শেষ কবে তিনি বাড়ি গিয়েছেন পরিবারের লোকেরাও ঠিক মনে করতে পারেন না। গত কয়েক বছর ধরে বরং ফারজানার পরিবার আমিরের বাড়িতে এসেই তাঁদের মেয়ের সঙ্গে দেখা করে গিয়েছেন। আমিরও ফারজানা উপর প্রবল নির্ভর করতেন। কারণ, ফারজানার হাতের রান্না ছাড়া আমিরের মুখে কিছুই রোচে না।

গত ১৮ বছর ধরে ফারজানা আমিরের ছায়াসঙ্গী বলা যায়। কিন্তু, আমির খানের বাড়িতে ৮০ লক্ষ টাকার গয়না উধাওকে কেন্দ্র করে জীবন অতিষ্ঠ হয়ে উঠেছে ফারজনা-সহ বাড়ির অন্যান্য কাজের লোকেদের। লাগাতার পুলিশি জিজ্ঞাসাবাদে তাঁরা তিতিবিরক্ত। তাঁদের নিজেদের বাড়িতেও পৌঁছে গিয়েছে পুলিশ। জেরার হাত থেকে বাদ যাননি ফারজানার মা কেশর বেগম ও তাঁর দুই ছেলে। গোটা ঘটনায় স্বাভাবিকভাবেই অত্যন্ত অপমানিত বোধ করেছেন তাঁরা।

তাঁরা বিশ্বাসই করতে পারছেন না যে ফারজানাকেও এভাবে সন্দেহের তালিকায় ফেলা হতে পারে। ফারজানার মা ও তাঁর ভাইদের বক্তব্য, আমির যেহেতু বেশিরভাগ সময়েই বিশেষ ডায়েটে থাকেন, তাই তাঁর জন্য আলাদা করে রান্না করতে হয়। আর সে ব্যাপারে অত্যন্ত দক্ষ ফারজানা। আমির বিদেশে শ্যুটিং করতে গেলেও ফারজানাকে সঙ্গে নিয়ে যান। এমন একটি মানুষকে গত কয়েকদিন ধরে রোজ হাজিরা দিতে হচ্ছে খার পুলিশ স্টেশনে।

আমিরের স্ত্রী কিরণ রাওয়ের দু’টি গয়না নিখোঁজের বিষয়টি সম্প্রতি নজরে আসে। কিরণের এক আত্মীয় বিষয়টি নজরে আনেন। এরপর থেকেই পুলিশি তদন্তে জেরবার আমিরের বাড়িতে কাজ করা বহিরাগতরা। আমিরের মা-এর ড্রাইভারকে ডেকেও জেরা করা হয়েছে। মুম্বইয়ের একটি ট্যাবলয়েডে প্রকাশিত প্রতিবেদন অনুযায়ী, ফারজানার মা কেশর জানিয়েছেন যে পুলিশ তাঁদের বাড়িতে এসে রান্নাঘরের আটা, ডালের কৌটোতেও তল্লাশি করেছে।

কেশরের একটাই প্রশ্ন, এত বছরের বিশ্বস্ততার এই প্রতিদান দিলেন আমির? আমির-কিরণের বান্দ্রার বাড়িতে কাজের লোকের সংখ্যা অনেক কিন্তু ফারজানা ছাড়া আর দু’জন মাত্র রাতে থাকেন— কিরণের অ্যাসিস্ট্যান্ট সুজানা এবং আর এক পরিচারিকা ঝুমকি। সেটাই কি তাঁদের একমাত্র অপরাধ? ফারজানার আগে কেশরও বহুদিন আমিরের বাড়িতে ঘরদোর পরিষ্কারের কাজ করেছেন। যদি অপরাধমনস্কতা থাকতই তবে কি এত বছরে কিছু ঘটত না?

শুধুমাত্র কাজের লোক বলেই কি আজ এই পুলিশি হেনস্থা ফারজানাদের? অথচ, আমিরের বাড়িতে তো পরিবারের অন্য সদস্যরাও থাকেন। পরিবারের সদস্য বলেই কি তাঁরা সন্দেহের ঊর্ধ্বে? নাকি তাঁদের সোশ্যাল স্টেটাস আমিরের সমান বলে আর ফারজানাদের তা নয় বলেই সন্দেহের তালিকায় রয়েছেন ফারজানারা? আমিরের বাড়ির গয়না উধাও রহস্য এমনই বহু প্রশ্ন এখন তুলে ধরেছে।