মেইন ম্যেনু

১৯৭৮ সালে ভারতে আচমকা বাতিল হয়েছিল ১০০০ টাকার নোট! কী হয়েছিল সেবার?

৮ নভেম্বর, রাত ৮টা। এক সিদ্ধান্তেই গোটা ভারতকে কাঁপিয়ে দিলেন নরেন্দ্র মোদী। বাতিল হয়ে গেল ৫০০ এবং ১০০০ টাকার নোট। ঠিক এই পরিস্থিতি দেখা গিয়েছিল ৩৮ বছর আগে। ১৬ জানুয়ারি, ১৯৭৮ সালে তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী মোরারজি দেশাইও এমনই আচমকা এক ঘোষণায় গোটা ভারতকে চমকে দিয়েছিলেন। সেদিন ১০০০, ৫০০০ এবং ১০,০০০ টাকার নোট বাতিল বলে ঘোষণা করেছিলেন মোরারজি দেশাই।
মঙ্গলবার মোদী জানিয়েছিলেন, রাত ১২টা থেকে ৫০০, ১০০০ টাকার নোট বাতিল বলে গণ্য হবে। আর সেদিন মোরারজি দেশাই জানিয়েছিলেন, ব্যাংক বন্ধ হওয়ার পরে আর বৈধ মুদ্রা হিসেবে স্বীকৃতি থাকবে না ১০০০, ৫০০০ এবং ১০ হাজার টাকার নোটের। যদিও জনতা দল সরকারের এই সিদ্ধান্তকে সমর্থন করেননি তৎকালীন রিজার্ভ ব্যাংকের গভর্নর আই জি পটেল। তবে, এবারে মোদীকে সমর্থন করেছেন বর্তমান রিজার্ভ ব্যাংকের গভর্নর উর্জিৎ পটেল। সরকারের এই সিদ্ধান্ত কার্যকর করতে একটি আইনও তখন চালু করা হয়েছিল। যদিও, ১৯৯৮ সালেই ফের এনডিও সরকার ১০০০ টাকার নোট চালু করে।

image-7

১০০০০ টাকার নোট।

১৯৩৪ সালে, প্রথম ৫০০ টাকার নোট ভারতে চালু হয়েছিল। ১৯৩৮ সালে ভারতের রিজার্ভ ব্যাংক প্রথমবার ১০,০০০ টাকার নোট ছাপিয়েছিল ভারতীয় রিজার্ভ ব্যাংক। ১০০০ এবং ১০,০০০ টাকার নোট ১৯৪৬ সালে কালো টাকা বন্ধ করার উদ্দেশ্যে প্রথমবার বাতিল বলে ঘোষণা করা হয়েছিল। কিন্তু, ১৯৪৯ সালেই ফের এই নোটগুলি ফিরে এসেছিল। এর পরে ১৯৭৮ সালে ফের এই ১০০০, ৫০০০ এবং ১০,০০০ টাকার নোট বাতিল বলে ঘোষণা করেছিলেন মোরারজি দেশাই।

image-6

৫০০০ টাকার নোট।

যদিও, সেবারের সঙ্গে এখনকার ছবিটার কোনও তুলনাই চলে না। এখন মানুষের হাতে অসংখ্য ৫০০ বা ১০০০ টাকার নোট। আজকের দিনে তার মূল্যও খুব বেশি নয়। কিন্তু ১৯৭৮ সালে হাতে গোনা কয়েকজন মানুষের কাছে ১০০০ টাকার নোট থাকত। ৫০০০ বা ১০০০০-এর নোটের সঙ্গে আমজনতার খুব একটা সম্পর্ক ছিল না।

ফলে, নোট বাতিল বলে ঘোষণা করলেও সেবারে তার খুব বেশি প্রতিক্রিয়া হয়নি। যদিও, এবারের মতো ১৯৭৮ সালেও এই ঘোষণার পরের দিন ব্যাংক বন্ধ রাখা হয়েছিল।