মেইন ম্যেনু

৫টি কৌশলে সম্পর্ক ভাল রাখুন সহকর্মীর সাথে

অফিসে কাটে দিনের দীর্ঘ একটা সময়। সকালে ঘুম থেকে উঠে গুছিয়ে চলে আসি আমরা কর্মক্ষেত্রে। এরপর সারাটাদিন কাটে ব্যস্ততায়। বাড়ি ফিরে বিশ্রাম নিতেই বেশী ভাল লাগে। ভাল লাগে নিজের মত থাকতে। কিন্তু সে আর কতটা সময়। কিছুক্ষণ পরই খেয়েদেয়ে ঘুমিয়ে পড়ি আমরা। দিনের বেশীরভাগ সময়টা কাটে যাদের সাথে তাদের সাথে সম্পর্কটা ভাল হওয়া খুবই জরুরি।

আসুন জেনে নিই, সহকর্মীদের সাথে প্রাণবন্ত সম্পর্ক গড়ে তুলবেন কিভাবে-

শুভ সকাল
অফিসে প্রবেশ করেই হাসিমুখে ‘শুভ সকাল’ বলুন আপনার সহকর্মীকে। একটা মিষ্টি হাসি আপনাদের সম্পর্ককে সহজ করবে। সাথে সাথেই মন ভাল লাগবে আপনার, একই সাথে সামনের মানুষটিরও কিন্তু ভাল লাগবে। এটা না করে আপনি যদি চোখ নিচু করে অফিসে ঢোকেন, মাথা নিচু করে সোজা আপনার পিসিতে বসে কাজ করতে শুরু করেন আপনার সহকর্মী মনে করতে পারেন, আপনি তাকে পছন্দ করেন না বা এড়িয়ে যেতে চাইছেন।

ছোট ছোট কথা
আপনারা সহকর্মী, কিন্তু তার মানে এই নয় যে আপনারা কখনো গল্প করতে পারবেন না। নিজেদের জীবনের ছোট ছোট কথা ভাগাভাগি করে নিতে পারেন। কিভাবে অফিসে আসেন, সকালে কি করেন, সন্তানদের স্কুলে আনা-নেওয়া কে করে এসব টুকটাক গল্প কিন্তু করাই যায়।

মতামত চাইতে পারেন
আপনি যদি আপনার কোন কাজে মাঝে মাঝে আপনার সহকর্মীদের মতামত নেন সেটা কিন্তু আপনাদের মাঝে সম্পর্ক ভাল করতে বেশ কাজে দিতে পারে। তাকে প্রশ্ন করতে পারেন, ‘আপনি যদি ব্যস্ত না হন তাহলে প্লিজ একটু দেখে দিন আমার রিপোর্টে কোন ভুল আছে কিনা!’ আপনাকে সব বিষয়ে পারদর্শী দেখা এক ধরণের ঈর্ষা করার মানসিকতাকে প্রলুব্ধ করে। তাই কখনো কখনো মত নিন, তার বক্তব্য তেমন কাজের না হলেও বলুন ‘ধন্যবাদ’।

গসিপ এড়িয়ে চলুন
একজন কো-ওয়ার্কার আপনার ভাল বন্ধু হতে পারেন। কিন্তু তার মানে কিন্তু কখনোই এই নয় যে আপনি তার সাথে যেকোন আলোচনা করতে পারেন। বিশেষ করে অপর সহকর্মীর দূর্নাম করা, বসের উপর বিরক্তি প্রকাশ করা এধরণের আচরণ থেকে বিরত থাকুন। আপনার চাকরিজীবনকে ক্ষতিগ্রস্থ করতে পারে এমন ন্যুনতম বিষয় আলাপ করা এড়িয়ে চলুন।

প্রশংসা করুন
প্রতিটি মানুষেরই ভাল-মন্দ নানান রকমের স্বভাব থাকে। কাজের ক্ষেত্রেও সে কোথাও অভীজ্ঞ, পারদর্শী আর কোথাও হয়ত তেমন ভাল নন। মনে রাখবেন, সহকর্মীকে কোন কাজে পারদর্শী করা আপনার দায়িত্ব নয়। তাই যতক্ষণ তার অদক্ষতার জন্য আপনাকে ঝামেলায় পড়তে না হচ্ছে ততক্ষণ অযথা সমালোচনা করতে যাবেন না। বরং প্রশংসা করুন তার ভাল কাজগুলোর। অন্তত তার পোশাক-পরিচ্ছদের প্রশংসা করুন। মানুষের গুণের স্বীকৃতি দেওয়া দোষের কিছু নয়।