মেইন ম্যেনু

৮ ওভারেই জিতে গেলো রংপুর

210042rangpur-1

টার্গেট মাত্র ৪৫। সেটি জয় করতে আর কি লাগে? খুলনা টাইটান্সের বিপক্ষে মাত্র ৮ ওভার ব্যাট করেই এবারের বিপিএলে টানা দ্বিতীয় জয় তুলে নিল রংপুর রাইডার্স। টানা দুই ম্যাচে ৯ উইকেটের দাপুটে জয় তাদের। আর দুই ম্যাচে খুলনার প্রথম হারটি হলো বড় লজ্জার। বিপিএলের ইতিহাসের সর্বনিম্ন ৪৪ রানে তারা অল আউট হয়েছে মাত্র ১০.৪ ওভারে।

মিরপুরে বৃহস্পতিবারের একমাত্র ম্যাচে কি কাণ্ডটাই না করলো রংপুর! মাহমুদ উল্লাহর খুলনা তাদের সামনে দাঁড়াতেই পারেনি। গত বছর এই মাঠেই সিলেট সুপারস্টার্স ১৬ ওভারে ৫৮ রানে অল আউট করেছিল বরিশাল বুলসকে। বরিশালকে মুক্তি দিয়ে লজ্জার রেকর্ডটি এখন খুলনার।

টি-টোয়েন্টি ইতিহাসে এটি আবার তৃতীয় সর্বনিম্ন স্কোর। এর চেয়ে কম রানে অল আউট হওয়ার রেকর্ড ৩৯ (নেদারল্যান্ডস) ও ৩০ (ত্রিপুরা)। বাংলাদেশের ঘরোয়া টি-টোয়েন্টির ইতিহাসেরও সর্বনিম্ন স্কোর খুলনার ওই ৪৪।

টসে হেরে ব্যাট করতে নেমে রংপুরের বোলিং ঘুর্ণীর মধ্যেই পড়ে মাহমুদ উল্লাহর খুলনা দল। শহীদ আফ্রিদি ৩ ওভারে ১২ রানে ৪ উইকেট নিয়েছেন। জাতীয় দল থেকে বাদ পড়া বাঁ হাতি স্পিনার আরাফাত সানি ২.৪ ওভারে ৩ উইকেট দিয়েছেন কোনো রান না দিয়েই! এই এক অন্যরকম রেকর্ড!

খুলনা ১৫ রানেই ৫ উইকেট হারিয়েছিল। সেখান থেকে ৩১ রানে যায় আর কোনো উইকেট না হারিয়ে। কিন্তু পরের ১৩ রানে শেষ ৫ উইকেট হারিয়ে লজ্জার রেকর্ড গড়ে তারা।

ম্যাচের দ্বিতীয় বল থেকে উইকেট হারাতে শুরু করে খুলনা। সোহাগ গাজী প্রথমে বোল্ড করলেন নিকোলাস পুরানকে (০)। তৃতীয় ওভারে তার সরাসরি থ্রোতে রান আউট অন্য ওপেনার আব্দুল মজিদ (৬)। এরপর ৩ বলে ৩ উইকেট হারায় খুলনা। অধিনায়ক মাহমুদ উল্লাহ (১) বোল্ড রিচার্ড গ্লেসনের বলে। পরের দুই বল ম্যাচে শহীদ আফ্রিদির প্রথম ওভারের প্রথম দুই বল। তাতে শিকার রিকি ওয়েসেলস (৫) ও অলক কাপালি (০)। শুভাগত হোম (১২) ইনিংস সর্বোচ্চ রান করলেন। ইনিংসে দুই অংকে যাওয়া একমাত্র ব্যাটসম্যানও তিনি। চার ব্যাটসম্যান আউট হয়েছেন শূণ্য রানে। আরিফুল হকের (৭) সাথে শুভাগতর ১৬ ইনিংস সর্বোচ্চ জুটি। সপ্তম ওভারে আফ্রিদি তার তৃতীয় শিকার বানান শুভাগতকে।

এরপর শুরু করেন সানি। নবম ওভারে দুই উইকেট নেন এই বোলার। ৪০ রানে ৮ উইকেট নেই। পরের দুই ওভারে আফ্রিদি ও সানি ১টি করে উইকেট নিয়ে মাত্র ৪৪ রানেই গুটিয়ে দেন প্রতিপক্ষকে।

এরপর ১ উইকেট হারিয়ে ৪৮ বল খেলে জয় তুলে নেয় রংপুর। মোহাম্মদ শাহজাদকে (১৩) দ্রুত তুলে নিতে পেরেছিল খুলনা। কিন্তু তারা আর সুযোগ পায়নি। সৌম্য সরকার ১৯ বলে ১৩ এবং মোহাম্মদ মিথুন ১৫ বলে ১৫ রানে অপরাজিত থেকে ম্যচে শেষ করে দেন।