মেইন ম্যেনু

৮ নভেম্বর রাত ৮ টাতেই কেন নোট বাতিল করলেন মোদী? জেনে নিন রহস্যময় কারণটি

http-%2f%2fo-aolcdn-com%2fhss%2fstorage%2fmidas%2fa95ed4347305cf0bab180204388a73b1%2f204628396%2f624485510

গত ৮ নভেম্বর রাত ৮ টায় প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী এক ঐতিহাসিক পদক্ষেপের কথা ঘোষণা করেন। দেশে সঞ্চিত কালো টাকা ও জাল টাকার ভাণ্ডারের বিরুদ্ধে যুদ্ধ শুরু করার লক্ষ্যে বাতিল করে দেন পুরনো ৫০০ ও ১০০০-এর নোট। কিন্তু কেন ওই নির্দিষ্ট তারিখে ওই নির্দিষ্ট সময়েই জাতীয় টেলিভিশনে ওই ঘোষণা করলেন মোদী? সাধারণ দেশবাসীর কাছে বিষয়টি একেবারেই আকস্মিক। কিন্তু নিউমেরোলজিস্ট বা সংখ্যাতাত্ত্বিকরা মোদীর ওই ঘোষণার দিন-ক্ষণ নির্বাচনের পেছনে অন্যরকম যোগসূত্র দেখছেন।

আমেরিকার বিখ্যাত সংখ্যাতাত্ত্বিক পল সাডোস্কি মোদীর এই পদক্ষেপের ভিন্ন ধরনের ব্যাখ্যা দিচ্ছেন। তাঁর বক্তব্য, মোদীর জন্মসংখ্যা ৮। কারণ তাঁর জন্মতারিখ ১৭ সেপ্টেম্বর ১৯৫০। ১ এবং ৭ সংখ্যা দু’টির যোগফল ৮। তাছাড়া ইংরেজিতে নরেন্দ্র মোদী (Narendra Modi) নামটিতে মোট ১২টি অক্ষর রয়েছে। বর্ণমালায় অবস্থানের ভিত্তিতে প্রত্যেকটি অক্ষরের যোগফল

৬২। কীরকম? দেখে নিন—
N=১৪>১+৪=৫
A=১
R=১৮>১+৮=৯
E=৫
N=৫
D=৪
R=৯
A=১
M=১৩>১+৩=৪
O=১৫>১+৫=৬
D=৪
I=৯
যোগফল ৬২।

এবার এই ৬২-র স‌ংখ্যা দু’টিকে যোগ করলে যোগফল হয় ৮ (৬+২)। কাজেই ৮ স‌ংখ্যাটি বিশেষভাবে শুভ নরেন্দ্র মোদীর ক্ষেত্রে। সংখ্যাতাত্ত্বিকদের দাবি, এই বিষয়টি জানেন মোদী নিজেও। এবং তাঁর রাজনৈতিক কাজকর্মে ৮ সংখ্যাটি সেই কারণে বিশেষ তাৎপর্যও বহন করে। কীরকম? আসুন, দেখে নেওয়া যাক—

১. সংখ্যাতত্ত্ব অনুসারে ১৭ আর ২৬ সংখ্যা দু’টিও ৮ সংখ্যাটিকেই চিহ্নিত করে। কারণ ১ ও ৭, এবং ২ ও ৬-এর যোগফলও ৮। সেই কারণে দেখা যাবে, নরেন্দ্র মোদী তাঁর রাজনৈতিক জীবনের বহু গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্তই নিয়েছেন এই দু’টি তারিখে।

২. প্রধানমন্ত্রী হিসেবে মোদী শপথ নেন ২৬ মে ২০১৪ তারিখে।

৩. মোদী চতুর্থবারের জন্য গুজরাটের মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে শপথ নিয়েছিলেন ২৬ ডিসেম্বর ২০১২ তারিখে।

৪. লোকসভা নির্বাচনের জন্য প্রচার শুরু করেছিলেন মোদী ২০১৪ সালের ২৬ মার্চ।

৫. প্রধানমন্ত্রীর বাসভবন যে রাস্তায় অবস্থিত, সেই রাস্তার নাম রেস কোর্স রোড থেকে বদলে মোদী করেন লোক কল্যাণ মার্গ। ক্যালাডিয়ান ক্যালেন্ডার অনুসারে ‘লোক কল্যাণ মার্গ’ নামটির সংখ্যাতাত্ত্বিক মূল্য

৮। প্রধানমন্ত্রীর অফিসের নম্বর অবশ্য

৭। কিন্তু সেই নম্বর তো আর বদলানো সম্ভব নয়। অগত্যা রাস্তার নাম বদল— এমনটাই ব্যাখ্যা সংখ্যাতাত্ত্বিকদের।

৬. মোদী গরিবদের সাহায্যার্থে স্বাবলম্বন অভিযান শুরু করেন ১৭ সেপ্টেম্বর ২০১৪ তারিখে।

৭. ২০১৫ সালে গুজরাটে প্রবাসী ভারতীয় দিবস উদ্বোধন করেছিলেন মোদী। উদ্বোধনের তারিখটা ছিল ৮ জানুয়ারি।

৮. মোদীর উদ্যোগে প্রধানমন্ত্রী মুদ্রা যোজনা তার যাত্রা শুরু করে ৮ এপ্রিল ২০১৫-এ।

৯. সার্ক-এর উদ্বোধনী ভাষণ দিয়েছিলেন মোদী ২৬ নভেম্বর ২০১৪-এ।

১০. কৃষকদের জন্য দূরদর্শন কিষাণ উদ্বোধন করেছিলেন মোদী ২০১৫ সালের ২৬ মে।

১১. সবথেকে বড় কথা, ‘ডিজিটাল ইন্ডিয়া’র যাত্রা ঘোষণা করেন মোদী ২৬ সেপ্টেম্বর ২০১৫।

এই তালিকাতেই সর্বশেষ সংযোজন নোট বাতিলের ঘোষণা। শুধু ৮ তারিখে নয়, রাত ৮ টার সময়েই এই নোট বাতিলের ঘোষণাটি করেন মোদী। এই ৮.১১.২০১৬ তারিখটিও সংখ্যাতত্ত্বের বিচারে বিশেষ তাৎপর্যপূর্ণ।

সাডোস্কির ব্যাখ্যা, মোদীর কাজকর্ম ও মানসিকতাকেও সংখ্যাতত্ত্ব দিয়ে ব্যাখ্যা করা সম্ভব। যাঁদের জন্মসংখ্যা ৮ হয়, তাঁরা সাধারণত উচ্চাশী এবং প্রত্যয়ী হন। অর্থনৈতিক ও ব্যবসায়িক ক্ষেত্রে নির্ভুল সিদ্ধান্ত নেওয়ার ক্ষমতার অধিকারী হন তাঁরা। মোদীর কাজকর্মে এই মানসিকতারই প্রতিফলন ঘটেছে।

মোদী নিজে অবশ্য তাঁর সাক্ষাৎকারে জোরের সঙ্গেই একাধিকবার বলেছেন যে, তিনি কোনও রকম জ্যোতিষ বা সংখ্যাতত্ত্বে বিশ্বাস করেন না। কিন্তু স‌ংখ্যাতাত্ত্বিকরা তথ্যপ্রমাণ সহ মোদীর এই দাবিকে ভুল প্রমাণ করতে চাইছেন। তাঁরা যেসব প্রমাণ তুলে ধরছেন, তার কিছু গ্রহণযোগ্যতা রয়েছে ঠিকই। কিন্তু একথাও সত্য যে, মোদীর রাজনৈতিক জীবন বিশ্লেষণ করলে নিশ্চয়ই দেখা যাবে, বহু সিদ্ধান্ত এবং পদক্ষেপই এমন সময়ে বা তারিখে নিয়েছেন মোদী, যার সঙ্গে ৮-এর কোনও যোগ নেই।