মেইন ম্যেনু

৮ নৌকায় ফেরত পাঠানো হয়েছে ১০৭ রোহিঙ্গাকে

teknaf__ok_31808_1479992504

মিয়ানমারের আরকান প্রদেশে সাম্প্রতিক সহিংসতার কারণে বাংলাদেশে রোহিঙ্গা অনুপ্রবেশ কোনভাবেই থামছে না। সীমান্ত এলাকায় কড়া নিরাপত্তার মাঝেও অবৈধভাবে অনুপ্রবেশ করছে রোহিঙ্গারা।

এ পরিস্থিতিতে বৃহস্পতিবার সীমান্ত এলাকা পরিদর্শন করেছেন বিজিবির নতুন মহাপরিচালক। এদিকে বৃহস্পতিবার নাফনদীতে ৮ নৌকাসহ ১০৭ জন রোহিঙ্গাকে ফেরত পাঠানো হয়েছে। এছাড়া ৭ দালালকে আটকের পর সাজা দেয়া হয়েছে। অনুপ্রবেশকারীদের মধ্যে নারী ও শিশুর সংখ্যা সবচেয়ে বেশি।

মিয়ানমারের আরাকান রাজ্যের মংডু এলাকার উত্তরাংশে বর্ডার গার্ড পুলিশের (বিজিপি) ৩টি ক্যাম্পে সশস্ত্র হামলায় ৯ বিজিপি সদস্য নিহত হওয়ার পর থেকে মিয়ানমারে চালানো হয় সেনা অভিযান। হেলিকপ্টার থেকে গান পাউডার ছিটিয়ে পোড়ানো হয় রোহিঙ্গাদের বাড়িঘর। এর প্রেক্ষিতে দলে দলে বাংলাদেশে অনুপ্রবেশ করতে থাকে রোহিঙ্গারা। বিজিবি কোস্টগার্ডের কড়া নজরদারি উপেক্ষা করে বৃহস্পতিবারও সীমান্তের বিভিন্ন পয়েন্টে দিয়ে অনুপ্রবেশের ঘটনা ঘটে।

বৃহস্পতিবার উখিয়ার বিভিন্ন সীমান্ত ঘুরে দেখা গেছে রোহিঙ্গাদের অনুপ্রবেশ করছে।

বালুখালী সীমান্তের কৃষক নুরুল আমিন বলেন, সীমান্তে এত বিজিবি এর আগে দেখিনি। অনেক কড়া নজরদারি আছে বিজিবির। কিন্তু এরপরও রোহিঙ্গারা আসছে।

সীমান্ত পার হয়ে এদেশে প্রবেশের পর কথা হয় ৭৮ বছর বয়সী বৃদ্ধ নারী ছালেখার সঙ্গে।

তিনি জানান, তার সামনে স্বামী আর পুত্রকে মিয়ানমারের মিলিটারি হত্যা করে। আর এরপর ছালেখা বাড়ীতে আটকা পড়ে। খাবার বন্ধ হয়ে যায়। পরে এক আত্মীয়ের হাত ধরে বাচাঁর জন্য এ দেশে পালিয়ে এসেছে। এসব কথা বলতে গিয়ে বার বার কান্নায় ভেঙে পড়ছিলেন ছালেখা।

সীমান্তের বিভিন্ন পয়েন্টে এরকম অনেককে দেখা গেছে যারা এ দেশে প্রবেশ করছে। বৃহস্পতিবার অবৈধ অনুপ্রবেশকালে নাফ নদী থেকে রোহিঙ্গা বোঝাই ৮ টি নৌকা ও উখিয়া সীমান্ত থেকে ১০৭ জনকে ফেরত দিয়েছে বিজিবি। টেকনাফ থেকে আটক করা হয় ৭ দালালকে।

টেকনাফস্থ ২ বিজিবির অধিনায়ক লে. কর্নেল আবুজার আল জাহিদ জানান, নাফনদীতে রোহিঙ্গা বোঝাই ৮টি ট্রলার এদেশে প্রবেশের চেষ্টা করার খবর পেয়ে সাগরের টহল দলকে বিষয়টি অবহিত করা হয়। এরপর বৃহস্পতিবার সকাল ১০টার দিকে বাংলাদেশের জলসীমা থেকে উক্ত ৮ নৌকাকে মিয়ানমারের দিকে ফেরত পাঠানো হয়।

রোহিঙ্গা অনুপ্রবেশে সহায়তাকারী আটক ৭ ব্যক্তিদের টেকনাফ উপজেলার নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটের ভ্রাম্যমাণ আদালতে হাজির করা হলে আদালত তিনজনকে দুই মাস করে ও চারজনকে এক মাস করে কারাদণ্ড দেন।

কক্সবাজারস্থ ৩৪ বিজিবির অধিনায়ক লে. কর্নেল ইমরান উল্লাহ সরকার জানান, বৃহস্পতিবার সকালে উখিয়ার কয়েকটি সীমান্ত পয়েন্ট দিয়ে রোহিঙ্গারা এ দেশে প্রবেশের চেষ্টা করে। এসময় ১০৭ রোহিঙ্গাকে মিয়ানমারে ফেরত পাঠানো হয়। তার মধ্যে ৩০ জন পুরুষ,২৯ নারী ও ৪৮ জন শিশু রয়েছে।

এদিকে মিয়ানমারে চলমান সংঘাতের কারণে সীমান্ত পরিস্থিতি পর্যাবেক্ষণ করতে কক্সবাজারে এসেছেন বিজিবির মহাপরিচালক মেজর জেনারেল আবুল হোসেন। বৃহস্পতিবার দুপুরে তিনি কক্সবাজার পৌঁছে বিকালে টেকনাফ, উখিয়ার বিভিন্ন সীমান্ত এলাকা পরিদর্শন করেন বলে কক্সবাজারের ভারপ্রাপ্ত সেক্টরের কামান্ডার কর্ণেল এম এম আনিসুর রহমান জানিয়েছেন।

বিজিবির টেকনাফের ২নং ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক লে. কর্নেল আবুজার আল জাহিদ জানিয়েছেন, শুক্রবার সকালে টেকনাফে সাংবাদিকদের সঙ্গে মতবিনিময় করবেন বিজিবির মহাপরিচালক।